ই’তিকাফ অর্থ স্থির থাকা

ই’তিকাফ অর্থ স্থির থাকা

প্রকাশিত: ২৭-০৫-২০১৯, সময়: ১১:০৭ |
খবর > মতামত
Share This

হোছাইন আহমাদ আযমী : ই’তিকাফ : ১. ই’তিকাফের অর্থ হলো স্থির থাকা, অবস্থান করা। পরিভাষায় জাগতিক কার্যকলাপ ও পরিবার পরিজন থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে সওয়াবের নিয়তে মসজিদে বা ঘরের নির্দিষ্ট স্থানে অবস্থান করা ও স্থির থাকাকে ইতিকাফ বলে। ২. রমযানের শেষ দশকে ই’তিকাফ করা সুন্নাতে মুয়াক্কাদায়ে কেফায়া, অর্থাৎ বড় গ্রাম বা শহরের প্রত্যেকটা মহল্লা এবং ছোট গ্রামের পূর্ণ বসতিতে কেউ কেউ ই’তিকাফকরলে সকলেই দায়িত্ব মুক্ত হয়ে যাবে। আর কেউ না করলে সুন্নাত তরকের জন্য সকলেই দায়ী হবে। ৩. রমযানের ২০ তারিখ সূর্যাস্তের পূর্ব থেকে ঈদুল ফিতরের চাঁদ দেখা পর্যন্ত ইতিকাফের সময়।

ইতিকাফের শর্ত সমুহ : ১. এমন মসজিদে ইতিকাফ হতে হবে যেখানে নামাযের জামাত হয়। জুমআর জামাত হোক বা না হোক। এ শর্ত পুরুষের ইতিকাফের ক্ষেত্রে। মহিলাগণ ঘরের নির্দিষ্ট স্থানে ইতিকাফ করবে। ২. ইতিকাফের নিয়ত করতে হবে। ৩. হায়েয অথবা নেফাস শুরু হলে ইতিকাফ ছেড়ে দিবে।

বিজ্ঞানের দৃষ্টিতে রোযা-১৮
ইটালীর নেপর শহরের ডা. লোদভীক কারণারো ৮৩ বছর বয়সে নিজে রোযা রেখে রোযার উপকারিতার উপর এক গবেষনায় বলেছে, হে অসহায় ইটালীবাসি, তোমরা কি দেখনা! তোমার দেশের জনগন খাওয়ার চাহিদা ও আগ্রহ পূর্ণ করতে গিয়ে অন্য যে কোন সংক্রামক রোগ কিংবা যুদ্ধ অপেক্ষা আরো বেশি মৃত্যুও কোলে ঢলে পড়ছে? বেশি খাদ্য গ্রহন মারাত্মক যুদ্ধের ফলাফল অপেক্ষা আরো বেশি ধ্বংসাত্মক। শরীরের জন্য যতটুকু প্রয়োজন এবং উপযোগী ততটুকুর বেশি খাদ্য খাওয়া যাবে না। আমরা বেশি ভোজনে আনন্দ লাভ করলেও শেষ পর্যন্ত এর বিরাট মূল্য আদায় করতে হবে। কোন কোন সময় সে মূল্য জীবনও হতে পারে।

উপরে