মেরিনার স্বপ্ন যাত্রায় দারিদ্রতার থাবা

প্রকাশিত: ১৯-০৫-২০১৯, সময়: ১২:৫১ |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক, মোহনপুর : স্বপ্ন জয়ের চরম ইচ্ছে আছে মেরিনা খাতুনের। সাহস আছে শক্তি নেই। স্বপ্ন পুরণের পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে অর্থ সংকট। শত আত্মবিশ্বাস নিয়ে স্বর্পেন সিঁড়ি বেয়ে এগিয়ে যেতে এখনো চরম আশাবাদী মেরিনা। মেরিনা এবার মোহনপুরের কেশরহাট উচ্চ বিদ্যালয় হতে এসএসসি পরিক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে।

মোহনপুর উপজেলার কেশরহাট উচ্চবিদ্যালয় হতে বিজ্ঞান বিভাগ নিয়ে এসএসসি পরিক্ষায় জিপিএ-৫ অর্জন করে। সে কেশরহাট পৌর এলাকার নওগাঁ গ্রামের আবদুল মান্নানের মেয়ে। মেরিনা ১ম শ্রেণিতে লেখাপড়া অবস্থায় বাবা তাদের ফেলে অন্যত্র চলে যায়। অসহায় অবস্থায় মেরিনাসহ তার মায়ের জীবন জীবিকার ভার কাঁধে তুলে নেয় তার নানা পারেস আলী। তিনিও অত্যন্ত দরিদ্র নীরিহ একজন মানুষ। কিন্তু মেরিনাদের ফেলে দিতে পারেন নি তিনি।

দিন দিন মেরিনা বড় ক্লাসে এগিয়ে যেতে থাকে আর বাড়তে থাকে তার লেখাপড়ার খরচ। বৃদ্ধ নানার কাঁধে চাপে বাড়তি খরচের পালা। কিন্তু কিভাবে সম্ভব জমি সম্পদহীন বৃদ্ধ মানুষটির পক্ষে পুরো পরিবারের খরচ যোগানো। নবম শ্রেণিতে ওঠার পর পর অর্থাভাবে বাধাগ্রস্ত হতে থাকে তার লেখাপড়া। তবু লেখাপড়ার হাল ছাড়েনি মেরিনার কঠিন বাধা বিপত্তি উপেক্ষা করে এসএসসি পরিক্ষা দিয়ে জিপিএ-৫ নিয়ে পাস করে সে। নানার ঘামায়িত শরীর ও ক্লান্ত মনে হাঁসি ফোটে ওঠার পরিবর্তে চোখ দুটি ভরে উঠে দুঃখের জলে। মুখটি ছিল মলিন। কারণ তার পক্ষে কোনো ভাবেই আর সম্ভব নয় বাবা হারা আদুরের নাতনি মেরিনার লেখাপড়া খরচ জোগানো। কিন্তু কোনো ভাবেই তিনি একথা প্রকাশ করতে পারছিলেন না তিনি। কিন্তু অভাব অনটন চীরদিন লুকিয়ে রাখা যায় না। মেরিনাকে জানানো হয় অর্থাভাবে তাকে লেখাপড়া ছাড়তে হচ্ছে। এমন বিষয়টি স্থানীয় একাধিক গণমাধ্যম কর্মীদের পৌঁছে। দ্রুত মেরিনার বাড়িতে ছুটে যায় তারা। জানা যায় মেরিনার নানার সংসারের চরম দৈন্যতার কথা। কথা হয় মেরিনার সাথে। যেকোনো ধরণের অর্থ সহয়তা পেলে লেখাপড়া চালিয়ে যেতে ইচ্ছুক সে। প্রয়োজনে মেরিনার মোবাইল নং- ০১৭৮৬-৯৬৪৪৪০।

উপরে