ঘূর্ণিঝড়ের আঘাত, সন্ধান মিলল ব্রোঞ্জ যুগের জঙ্গলের

প্রকাশিত: ২৯-০৫-২০১৯, সময়: ১৮:৪৬ |
Share This

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : ব্রোঞ্জ যুগে বন্যায় ডুবে গিয়েছিল পুরো একটা জঙ্গল। গত চার হাজার বছরের বেশি সময় ধরে মাটির নীচে চাপা ছিল সেটি। সমুদ্রের নোনা পানি, বালি এবং ঘাসের চাপড়ের নীচে প্রায় হারিয়েই গিয়েছিল। কিন্তু একটা মাত্র ঘূর্ণিঝড়ই সবকিছু পাল্টে দিল। উঠে এলো ব্রোঞ্জ যুগের সেই জঙ্গল।

দক্ষিণ-পশ্চিম ব্রিটেনের ওয়েলসে সম্প্রতি এই ঘটনা ঘটেছে। গত ২২ মে সেখানে আছড়ে পড়ে ঘূর্ণিঝড় হ্যানা। তার পরই সমুদ্র তীরবর্তী বর্থ এবং আনিস্লাস গ্রামের মধ্যবর্তী তিন-চার কিলোমিটার এলাকা জুড়ে ওই জঙ্গলের সন্ধান মেলে। হঠাৎ মাটি ফুঁড়ে বেরিয়ে আসা ওই জঙ্গল নিয়ে হইচই পড়ে গেছে চারিদিকে।

বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম এবং সোশ্যাল মিডিয়া সূত্রে ইতিমধ্যেই ওই জঙ্গলের ছবি ছড়িয়ে পড়েছে। তাতে শিকড়-বাকড় সমেত বহু গাছের অবশিষ্ট অংশকে মাথা তুলে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। কোন কোন গাছের উপর আবার ঘাসের আস্তরণও চোখে পড়েছে।
হঠাৎ করে সামনে আসা এই জঙ্গল নিয়ে মানুষের মধ্যেও কৌতূহল দেখা দিয়েছে। তাদের কথায়, জঙ্গলের পাশাপাশি ওই এলাকায় জনবসতিও ছিল। ছিল চাষযোগ্য উর্বর জমিও। বন্যা আটকাতে চারিদিকে মজবুত বাঁধও নির্মাণ করেছিলেন সেখানকার মানুষ। জনশ্রুতি, এক মেরেডিড নামের মহিলা পুরোহিত কর্তব্যে অবহেলা করলে, তাঁর তদারকির দায়িত্বে থাকা একটি কুয়োর পানি উপচে পড়ে। তাতেই সব কিছু ডুবে যায়।

ডুবে যাওয়া ওই জঙ্গলে পাইন, ওক, বার্চ-এর মতো গাছ ছিল বলে ধারণা। সমুদ্রের পানিরস্তর বৃদ্ধি পেলে সেগুলো নোনা জলের নীচে তলিয়ে যায় বলে জানিয়েছে ব্রিটেনের মেট্রো সংবাদপত্র। কিন্তু ঘাসের চাঙর এবং কাদামাটি জমা হয়ে গাছগুলো প্রকৃতিকভাবেই সংরক্ষিত হয়ে যায়।

স্থানীয় বাসিন্দারা যদিও জানিয়েছেন, এর আগেও ওই এলাকায় কিছু গাছের অবশিষ্ট অংশ চোখে পড়েছে। মানুষের জীবাশ্ম এবং পশুপাখিদের পায়ের ছাপও খুঁজে পেয়েছেন প্রত্নতত্ত্ববিদরা। তবে বিস্তৃত এলাকা জুড়ে জঙ্গলের খোঁজ এই প্রথম।

আজও ওই এলাকা থেকে মাটির নীচে চাপা পড়ে যাওয়া গির্জার ঘণ্টা বাজতে শোনা যায় বলেও দাবি করেছেন কেউ কেউ। তবে এর কোন তথ্যনিষ্ঠ প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

উপরে