ভয়াবহ ২১ আগস্ট

প্রকাশিত: ২০-০৮-২০১৯, সময়: ১৮:১৪ |
Share This

ত্রিশ বছরেও ঘাতকের মিটেনি সাধ-
পিতাকে হত্যা করেছে অনেক আগেই
হত্যা করেছে স্নেহময়ী মাকে,
ভাই হারিয়ে বেদনা বিভোর।

রাষ্ট্রভয় শাসকের বুকে, ৭৫-এ
নেভানো যায়নি যে দীপ-
বাঙালী, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি
রাখবে না বঙ্গে-শপথ ৭১’র পরাজিতের।

প্রতিহিংসার রাষ্ট্রযন্ত্রের শিকার পিতার
বংশধর, রাখবে না ঘাতক-দেশদ্রষ্টার
শেষ চিহ্ন খানি।
জনকের হত্যার মাসেই টার্গেটে
মানস কন্যা, আবারো জ্বলবে আগুন
ঝরবে রক্ত, হবে বন্যা লাশের।

আগস্ট মানেই বাংলাদেশের কলঙ্কিত
অধ্যয়-মানবতার পরাজয়।

২১ আগস্ট বাঙালির অস্তিত্বের চরম
আঘাৎ, গণতন্ত্রের পরাজয়, বীভৎস
এক করুণ বিকেল-
প্রকৃত সত্য শত্রু আড়ালে, বর্ণচোরা
শাসকের অভিনয়।

বঙ্গবন্ধু এভিউনিউ পিতার স্বপ্নে লালিত-
আওয়ামী লীগের সমাবেশ-দাবি গণতন্ত্রের,
পুলিশি নির্যাতনের প্রতিবাদ।
বাংলার প্রদীপ বক্তৃতায় শেখ হাসিনা-
রক্তচক্ষু জ্বলে উঠে শত্রুর।

বিকেল ৫টা-আরেকবার গণতন্ত্রের অভ্যূদয়-
যা ঘটেছিল ৫২, ৭১ ও ৭৫-এ।
দেড় মিনিটে ১১টি শক্তিশালী গ্রেনেড
বিস্ফোরণ, ছুটাছুটি দিক-বিদিক-
সভাস্থল রণাঙ্গন।

ভয়াবহতার নির্বাক দৃশ্য,
হতবিহবল বিশ্ব-কারো হাত নেই,
পা নেই, শহীদ আইভির সারিতে
নাম না জানা শহীদ ২৩।
নেতার প্রতি অকৃত্রিম ভালবাসায় তৈরী
মানব ঢাল-শতশত ত্যাগি মানুষের রক্তে
প্রাণ এলো হাসিনার-রাখে আল্লা মারে কে
সত্য হলো আরেকবার।

লাশের স্তুপ, আহতদের বুকফাটা আর্তনাদ
শংকিত বিশ্ব, কাঁদছে বাংলাদেশ-
পড়ে গেল ধরা আজন্ম শত্রুর তৈরী গ্রেনেড
পাকিস্তানি আর্জেস।

সাংবাদিক-সরকার দুলাল মাহবুব, রাজশাহী।

উপরে