ছয় ঋতুর দেশ

ছয়টি ঋতুর বাংলাদেশ, নানা রঙে আজ সেজেছে বেশ। কাঠফাটা রোদ গ্রীষ্মকালে, বৃষ্টি পড়ে বর্ষা এলে। থোকায় থোকায় কাঁশফুল, শরৎ..

একটি জীবন্ত কুঁড়ি

সংগ্রাম-ঐতিহ্যের একটি পরিবার, নির্ভয় আশ্রয় বঙ্গবন্ধুর ৩২ নং বাড়ি- এই বাড়িতেই ইতিহাস সৃষ্টি; সেখানেই উনিশ ৬৪’র ১৮ অক্টোবর জন্ম এক শিশুর। ফুটফুটে চাঁদ খেলছে ধরায়- বড় ভাইবোন সবারই আদর লভিছে আনন্দ, বাড়ছে কদর। লাল-নীল-সাদা..

ভয়াবহ ২১ আগস্ট

ত্রিশ বছরেও ঘাতকের মিটেনি সাধ- পিতাকে হত্যা করেছে অনেক আগেই হত্যা করেছে স্নেহময়ী মাকে, ভাই হারিয়ে বেদনা বিভোর। রাষ্ট্রভয় শাসকের বুকে, ৭৫-এ নেভানো যায়নি যে দীপ- বাঙালী, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি রাখবে না বঙ্গে-শপথ..

বাঙ্গালী হায়েনা

জোনাকির নিভে-জ্বলা আলোয় দেখবে দেশ, তাই ওরা মেতেছিল- ঘাপটি মেরে থাকা সৈনিক নামের এক কাপুরুষের দল। স্বাধীন দেশে পাকিস্তানের হারানো বদলা নিতে উদ্যোত তারা- বাঙলার সুর্যের তাপ ও আলো নেভাতে ওরা দিশেহারা। সুর্যের আলো..

আমি কি বেঁচে আছি…?

-আমি কি বেঁচে আছি? নাকি আরো একটা স্বপ্নের ঘোরে আছি? আমার কেন জানি মনে হচ্ছে এই দুঃস্বপ্ন, দুঃসহ যন্ত্রণা কখনও আমার পেছন ছাড়বে না? কেন? আমিতো কোনো পাপ করিনি, তাহলে আমার বেঁচে থাকা কেন এতটা বিষাদে ভরপুর হবে? আমি যতবার..

একাকীত্বের গল্প, এলোমেলো চিন্তা (পার্ট-২)

রাতটা খুব কষ্টের ছিল! ভীষণ কষ্টের। আমি বুঝতে পারছি এভাবে কোন লেখা শুরু করার মানে হয়না। কিন্তু আমি বুঝতে পারছি কোন কিছু একটা ঠিক নেই আমার সাথে। এখন প্রায় অনেক রাতেই আমি ঘুমাতে পারিনা। এমনটা নয় যে আমি ঘুমানোর চেষ্টা..

একাকীত্বের গল্প, এলোমেলো চিন্তা

গভীর রাত! চারদিক যখন অন্ধকার হয়ে আসে, চাঁদের আলো যখন জানালা দিয়ে উঁকি মারার চেষ্টা করতে থাকে, শহর ও গ্রাম যখন নীরব হয়ে আসে, ব্যস্ত নগরী হটাৎ করেই যখন এক ভিন্ন রূপ ধারন করে। আমি তখনো জেগে থাকি, আমি জেগে থাকি তখন আমার..

সাংবাদিক

সুবিশাল সাগর পরিধি, দিগন্ত অসীম আকাশ-সীমানা ছাড়িয়ে সত্যের সারথ হেঁটে চলা, দিক-বিদিক ছুটে ছুটে চলা নিরন্তর। রাত জাগা পাখি নয়, প্রশ্বাসে বাতাস, তবুও প্রতিটি ঘণ্টা মিনিট মুহূর্ত অতন্দ্র পাহারায়। সমাজের উন্নয়ন রাষ্ট্রের..

‘পহেলা বৈশাখ’

রং লেগেছে মনের কোণে খুশির স্রোতে ভাসছে দেশ, তারিখ ঘুরে এসেছে পহেলা বৈশাখ নতুন রঙে সাজবে বেশ। নতুন কাপড় নতুনত্ব আমেজে নতুন ভাবে মাতবে সবাই পিঠা-পুলি, পায়েসের সাথে খাবে আরও মন্ডা-মিঠাই। গ্রামে গ্রামে বসবে এখন বর্ষবরনের..

উপরে