বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন

প্রকাশিত: ০৮-০১-২০২০, সময়: ১৮:৫৮ |
Share This

ওরা দেখেছে বাঙালির কালবৈশাখী
ঝড়ের ছোবল-
ওদের কাছে থেকে ছিনিয়েছে ভূমি,
রক্তে ভেজানো এদেশ।

সেই হায়েনার কারাগারে বন্দী;
বাঙালির নয়নের মনি-
প্রহসন ও মৃত্যুর ক্রাউন-ডাউন পেরিয়ে
সেই নেতা স্বদেশ ভূমিতে ফিরছে।

এই সেই নেতা মুজিব। জীবনের
বন্দীদশায় বলেন শতবার;
ফাঁসির মঞ্চে দাঁড়িয়েও বীরের
কন্ঠÑ আমি বাঙালি, বাংলা
আমার দেশ, ভালোবাসি বাংলাকে
আমি।

তখন সদ্য প্রসূত রক্তস্নাত স্বাধীন
সার্বভৌম রাষ্ট্র বাংলাদেশ-
বিজয়ের পূর্ণস্বাদ পেতে রেসকোর্স
ময়দানে জনতার ঢল।

তবুও অপূর্ণতা, ঘাটতি মহানায়কের,
কখন আসবে নেতা। অবিসংবাদিত
সেই নেতার প্রত্যাবর্তন-
কেন এত দেরী? আকাশে বাধা নেই,
নেই মাটিতেÑ অনেক আগেই বাংলা
ছেড়েছে খুনি, হায়েনার দল।

অপেক্ষার প্রহর ধীরে বইছে সেদিন,
মুক্ত স্বদেশ, স্বতঃষ্ফূর্ত উপস্থিতি-
সেই সকাল থেকে ময়দান লোকারণ্য,
জনতার ঢল।

১০ জানুয়ারি এদেশের এক অস্তিত্ব;
স্মরণীয় বরেণ্য ইতিহাস-
সেদিন চৈত্রের খরতাপ নেই-
তবে নিঃশ্বাস আর বিশ্বাসের
ভরপুর, তৃষিত তৃপ্ত হৃদয়।

মুক্তিযুদ্ধের, স্বাধীনতার ঐশ্বরিক
জীবন্ত প্রতীকের আগমন-
তাইতো স্বাধীনচেতা মানুষের
মহাসমুদ্র, তখনও অপেক্ষা-
নেতা আসছেন, কী শোনাবেন
আমাদের!

প্রতীক্ষার পর্ব পিছে ফেলে
অবশেষে নেতা আসীন।
৭২’র ১০ জানুযারি, সেদিনের
মুক্ত অপরাহ্ণ-বিকাল, অগণিত জনতা,
মূহুর্মূহু হর্ষধ্বনি, জয়বাংলার স্লোগানে
মুখর বিদ্রোহী মাঠ।

লাখ লাখ জনতার উষ্ণ
সংবর্ধনায় সিক্ত-
স্বাধীনতার প্রতীক, মুক্তিকামী মানুষ
ও শহীদের প্রতিনিধি।
ন্যায়-আদর্শ-বিজয় ও বাঙালি
জাতিসত্ত্বার প্রতীক-স্মরিছে সশ্রদ্ধ;
পিছে না দেখি, দেশ গড়ি ঐক্যবদ্ধ
হয়ে।

লেখক :

সরকার দুলাল মাহবুব,

সাংবাদিক, রাজশাহী।

Leave a comment

উপরে