একাকীত্বের গল্প, এলোমেলো চিন্তা (পার্ট-২)

প্রকাশিত: ১৫-০৫-২০১৯, সময়: ১৫:১৮ |
Share This
রাতটা খুব কষ্টের ছিল! ভীষণ কষ্টের। আমি বুঝতে পারছি এভাবে কোন লেখা শুরু করার মানে হয়না। কিন্তু আমি বুঝতে পারছি কোন কিছু একটা ঠিক নেই আমার সাথে। এখন প্রায় অনেক রাতেই আমি ঘুমাতে পারিনা। এমনটা নয় যে আমি ঘুমানোর চেষ্টা করিনি, আমি আপ্রান চেষ্টা করেছি। এরপর শেষরাতে মনে হয়েছিল আমি হেরে যাচ্ছি নিজের কাছে। সত্যিই আমি ক্লান্ত, আজকে সকালে ভীষণ আমি ভীষণ ক্লান্ত। তাই আমি লিখছি, আমি জানি লিখলেই আমি কিছুটা হালকা হব।
আমার মাঝে মধ্যে নিজেকে নিয়ে দুঃখ হয়! আমি দিন দিন যে মানুষটি হয়ে যাচ্ছি, আমি এখন নিজেকে চিনতেই কষ্ট হয় মাঝে মধ্যে। আমি সবসময় মানুষের পেছনেই ছুটে গেলাম, অথচ প্রতিবারই এমন কারো পেছনে ছুটেছি, যাদের আমি কোনদিন স্পর্শ করতে পারবো না। আজ এতদিন পর আমার সত্যিই মনে হচ্ছে ভীষণ ক্লান্ত।
-আমি নিজেই প্রায়ই নিজের কাছে প্রতিজ্ঞা করি, যথেষ্ট হয়েছে আর না। আমি আর ছুটবোনা কোন ছায়ার পেছনে। তারপরেও আমি নিজেকে সামলাতে পারিনা, আমি নিজের উপর সত্যিই বিরক্ত। আমি তোমাকে জানার চেষ্টা করবো, আমি তোমার সম্পূর্ণটাই জানার চেষ্টা করবো। আমি তোমার প্রতিটা পছন্দ অপছন্দ মনে রাখাবো, তোমার প্রিয় শব্দটাও আমি মনে রাখবো। তোমার প্রিয় গানগুলো কখনো আমার মন থেকে হারাবে না! আমার মনে হয় এগুলাই আমাকে তোমার কথা মনে করিয়ে দিবে, যতক্ষন তুমি আমার পাশে থাকবে না। আমি তোমাকে ভালবাসি এবং ভালবেসে যাব। কিন্তু এরপর একদিন কোন এক সোনালী সকালে তুমি আমাকে ভুলে যাবে, এমন ভাব করবে যেন আমার কোন অস্তিত্বই ছিল না।
-ইদানীং আমার ভীষণ ভয় করে, আমি সম্পূর্ণ জগাখিচুড়ি হয়ে যাচ্ছি। আমার জীবন থেকে আমি এক এক করে সবাইকে হারাচ্ছি। আমার মনে হচ্ছে আমি খুব বেশি একা হয়ে যাচ্ছি। আমি মন খুলে কাঁদতে চাই মাঝে মধ্যে, কিন্তু আমার চোখের জল শুকিয়ে গিয়েছে। আমি যাকেই খুব বেশি আপন করছি, আমি তাকেই হারাচ্ছি। আমার মনে হচ্ছে এবার আমাকে থামাতেই হবে, আমাকে হারিয়ে যেতে হবে আস্তে আস্তে সবার জীবন থেকে। আমাকে খুঁজে পেতে হবে নিজেকে আরেকবার। আমি তোমাকে বলছি আমি সতিই পারিনা তোমাকে ভুলে যেতে।
-হয়তোবা আমি তোমাকে আর কখনো জিজ্ঞাস করবো না তুমি কেমন আছো, সারাদিন কেমন গেলো। আমি আজ সত্যিই ক্লান্ত, আমি ঘুমাতে চাই, আমি একটা লম্বা ঘুম দিতে চাই। কিন্তু অন্ততপক্ষে একবার তুমি আমাকে জিজ্ঞাস কর “আমি কেমন আছি?”,  আমার সাথে একবার কথা বল যেকোন কিছু নিয়ে। তারপরে হয়ত আমি একটু শান্তিতে ঘুমাতে পারবো, আমি একটু কাঁদতে পারবো, আমি এই ক্লান্তি থেকে মুক্তি পাবো…
লেখক: নয়ন বাবু (সাংবাদিক), সাপাহার উপজেলা, নওগাঁ।
উপরে