তিন কোটি শিক্ষার্থী পাবে ‘ইউনিক’ আইডি

তিন কোটি শিক্ষার্থী পাবে ‘ইউনিক’ আইডি

প্রকাশিত: ১২-০৭-২০১৯, সময়: ১৫:৪৫ |
Share This

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : দেশের তিন কোটির বেশি শিক্ষার্থীর জন্য ইউনিক আইডি (একক পরিচয়) তৈরি করছে সরকার। পাঁচ বছর বয়সী প্রাক-প্রাথমিকের শিক্ষার্থী থেকে ১৭ বছর বয়সের দ্বাদশ শ্রেণির সব ছাত্র-ছাত্রী পাবে এই ইউনিক আইডি। এই আইডিতে ১০ বা ১৬ ডিজিটের শিক্ষার্থী শনাক্ত নম্বর থাকবে, যা পরবর্তীতে হবে ওই শিক্ষার্থীর জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর। জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরিতে আলাদা করে তথ্য সংগ্রহের প্রয়োজন হবে না। ২০২০ সাল থেকে শিক্ষার্থী শনাক্ত করার ইউনিক আইডি দেওয়া শুরু হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ২০১০ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একটি সমন্বিত ও কার্যকর সিআরভিএস ব্যবস্থা গড়ে তোলার নির্দেশ দিয়েছিলেন। প্রত্যেক নাগরিকের একটি ইউনিক আইডি তৈরি করার নির্দেশনার আট বছর পর এই প্রথম শিক্ষার্থীদের টার্গেট করে ইউনিক আইডি করার উদ্যোগ নেওয়া হলো। শিক্ষার্থীর ইউনিক আইডিতে বিদ্যমান জাতীয় পরিচয়পত্রের চেয়ে বেশি তথ্যের সংযোজন থাকবে। ‘সিভিল রেজিস্ট্রেশন অ্যান্ড ভাইটাল স্ট্যাটিসটিকস’ (সিআরভিএস) বাস্তবায়নের আলোকে এই আইডি দেবে সরকার।

সূত্রমতে, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় ‘প্রাথমিক শিক্ষার্থীরদের জন্য প্রোফাইল প্রণয়ন’ এবং শিক্ষাতথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরো (ব্যানবেইস) এর ‘এস্টাবলিশমেন্ট অব ইন্টিগ্রেটেড এডুকেশনাল ইনফরমেশন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম’ শীর্ষক দুটি প্রকল্পের আওতায় এই কার্যক্রম বাস্তবায়ন করবে। স্থানীয় সরকার বিভাগের জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন জেনারেলের কার্যালয় ও নির্বাচন কমিশনের জাতীয় পরিচয়পত্র (এনিআইডি) অনুবিভাগসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও সরকারি দফতরের সহায়তায় এই কার্যক্রম পরিচালিত হবে।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, ‘প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের জন্য প্রোফাইল প্রণয়ন’ প্রকল্পের আওতায় পাঁচ বছর বয়সী প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণিতে ভর্তি হওয়ার সময় থেকে ভর্তি হওয়া ১০ বছর বয়সী পঞ্চম শ্রেণির এক কোটি ৮৭ লাখ শিক্ষার্থীর সব ধরনের তথ্য সংগ্রহ করা হবে। জন্ম নিবন্ধন সনদের তথ্যসহ যাবতীয় তথ্য বাবা-মায়ের জাতীয় পরিচয়পত্রের সঙ্গে মিলিয়ে নেওয়া হবে। প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত এসব তথ্য সংগ্রহের কাজ করবে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। সম্প্রতি ১৬৪ কোটি টাকার প্রকল্পটি জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) অনুমোদন দিয়েছে। স্কুলের শিশুদের টিফিনে দেওয়া হবে সুষম খিচুড়ি

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আকরাম-আল-হোসেন বলেন, প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে। পাঁচ বছর বয়সী প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণির শিক্ষার্থীদের একটা ডাটাবেইসের আওতায় নেওয়া হবে। জন্ম নিবন্ধন অনুযায়ী শিশুর বয়স যখন পাঁচ বছর হবে তখন থেকেই একটি সিস্টেমে নেওয়া হচ্ছে। পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত সব শিক্ষার্থীকে এর আওতায় আনা হবে। শিক্ষার্থীরা একটি আইডেন্টিফিকেশন নম্বর পাবে। এই নম্বরটিই পরবর্তী সময় জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বরে রূপান্তরিত হবে।

তিনি বলেন, প্রাথমিকের যারা আইন্টিফিকেশন নম্বর পাওয়ার পর মাধ্যমিকে ভর্তি হবে এবং মাধ্যমিকের পর কলেজে ভর্তি হবে তখন পর্যায়ক্রমে মাধ্যমিক ও কলেজের কাছে এই তথ্য চলে যাবে। শিক্ষার্থীর বয়স ১৮ বছর হলে এনআইডির অনুবিভাগের আওতায় চলে যাবে তার তথ্য। এই সিস্টেমে কোনও তথ্য ডুপ্লিকেশনের সুযোগ নেই। সিআরভিএস বাস্তবায়নের লক্ষ্যেই এটি করা হচ্ছে। দেশের সব নাগরিকের জন্য একক পরিচয় নিশ্চিত হবে এই সিস্টেমে।

মন্ত্রণালয়ের প্রকল্প সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, সিআরভিএস এর আলোকে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত এক কোটি ৮৭ লাখ শিশুর প্রোফাইল তৈরি করা হবে। এ বিষয়ে প্রকল্প পরিচালক (পিডি) নিয়োগের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ২০১৮ সালে এই প্রকল্প শুরু হয়েছে, প্রকল্প শেষ হবে ২০২১ সালে। এরপর মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিআরভিএস বাস্তবায়নের সঙ্গে এটি যুক্ত হবে। সূত্র- বাংলা ট্রিবিউন

Leave a comment

আরও খবর

  • রাজশাহীতে ছেলেধরা সন্দেহে ৫ এনজিও কর্মীকে গণধোলাই
  • চাঁপাইনবাবগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় দুইজন নিহত
  • ডেঙ্গুজ্বরে সিভিল সার্জনের মৃত্যু
  • ভারতে বজ্রপাতে ৩২ জন নিহত
  • রূপপুরে দুর্ণীতি ৬২ কোটি টাকার, জড়িত ৩৪ প্রকৌশলী
  • ছেলেধরা গুজবে কান না দেয়ার আহ্বান রাজশাহী পুলিশের
  • রাজশাহীতে ছেলেধরা সন্দেহে তিনজনকে গণপিটুনি
  • রাজশাহীতে জাল রুপি তৈরীর কারখানা
  • প্রিয়া সাহাকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ
  • প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে দুই মামলা
  • ছেলেধরা সন্দেহে নারীকে হত্যায় ৫০০ জনের বিরুদ্ধে মামলা
  • রাজশাহীতে তীব্র গরমের মধ্যে বিদ্যুতের লুকোচুরি
  • রাজশাহীতে ছেলেধরা সন্দেহে দুই যুবককে গণপিটুনি
  • ২৮ জুলাই থেকে অ্যাকশনে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ
  • গণপিটুনিতে জড়িতরা আইনের আওতায় আসছে



  • উপরে