ভয়াল ১২ নভেম্বর আজ

ভয়াল ১২ নভেম্বর আজ

প্রকাশিত: ১২-১১-২০১৮, সময়: ১০:০৮ |
Share This

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : আজ সেই ভয়াল ১২ নভেম্বর। ১৯৭০ সালের এই দিনে শতাব্দীর মহাপ্রলয়ঙ্করী ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে বিরান ভূমিতে পরিণত হয় পটুয়াখালী, বরগুনা, ভোলা, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, সন্দ্বীপসহ দক্ষিণাঞ্চলের বিশাল জনপদ। মৃত্যু ঘটে প্রায় ১০ লাখ মানুষের। জাতিসংঘের বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থার (ডব্লিউএমও) বিবেচনায় এ পর্যন্ত রেকর্ড করা ঘূর্ণিঝড়গুলোর মধ্যে এটি সবচেয়ে ভয়াবহ।

ইতিহাসের পাতায় ‘ভোলা সাইক্লোন’ নামে ঠাঁই পাওয়া এ ঘূর্ণিঝড়ে মানুষ ছাড়াও মারা যায় যায় লাখ লাখ গবাদি পশু ও জীবজন্তু। ক্ষতি হয় পাঁচ কোটি টন খাদ্যশস্যের। পরদিন সকালে নদীতে ভেসে ওঠে লাখ লাখ লাশ। গাছে গাছে ঝুলে ছিল মানুষের লাশ। এ ঘূর্ণিঝড়-পরবর্তী আলোকচিত্র দেখে আজও মানুষের মন বেদনাবিধুর হয়ে ওঠে। সেদিনের ঘূর্ণিঝড়ে স্বজন হারানোর দুঃসহ স্মৃতি নিয়ে এখনও বেঁচে আছেন অনেকে। এ ঘূর্ণিঝড়ে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ক্ষতি হয় দেশের ১৮টি জেলার। ঝড়ের পর বিশুদ্ধ পানি ও খাবারের সংকট দেখা দিয়েছিল। লাখ লাখ মানুষের লাশ মাটিচাপা দিতে হয় কাফন ছাড়াই। তৎকালীন পাকিস্তান সরকার এ মহাদুর্যোগকে আমলে না নেওয়ায় সাধারণ মানুষ ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। তৎকালীন সরকারের নেতিবাচক ভূমিকা ১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচন এবং ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধেও প্রভাব ফেলে। তবে দুর্গতদের পাশে দাঁড়ায় সারাবিশ্ব। আন্তর্জাতিক প্রচার মাধ্যমগুলোয় এ মহাদুর্যোগের খবর ব্যাপক প্রচার পায়। তালগাছের মাথায় বেঁচে থাকা মানুষের ছবি আলোড়ন তোলে পৃথিবীজুড়ে।

১৯৭০ সালের ৮ নভেম্বর বঙ্গোপসাগরে এ ঘূর্ণিঝড়ের সৃষ্টি হয়। এর প্রভাবে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হয় উপকূলীয় অঞ্চলে। ১১ নভেম্বর সকাল থেকে আকাশ ছিল মেঘে ঢাকা। পরদিন ১২ নভেম্বর সকাল থেকে কালো মেঘের সঙ্গে আবার গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি শুরু হয়। বাতাসের গতি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সাগর রুদ্রমূর্তি ধারণ করে। ২০ থেকে ২৫ ফুট উঁচু হয়ে একের পর এক ঢেউ উপকূলে আছড়ে পড়তে থাকে। বিকেলের মধ্যে সাত-আট ফুট পানির নিচে তলিয়ে যায় উপকূলের পপুয়াখালীর গলাচিপা, দশমিনা, কলাপাড়া; বরগুনার পাথরঘাটা, বেতাগী, তালতলী ও আমতলী; ভোলার চরফ্যাশন, লালমোহন, দৌলতখান, মনপুরা, বোরহানউদ্দিন, তজুমদ্দীন; নোয়াখালীর হাতিয়া, সুধারাম, রামগতি, রায়পুর, সোনাগাজী এবং চট্টগ্রাম জেলার কুতুবদিয়া, বাঁশখালী, সন্দ্বীপ, আনোয়ারাসহ বিভিন্ন চরাঞ্চল ও দ্বীপ। রাত ৮টার পর ঘূর্ণিঝড় হারিকেনের রূপ নিয়ে উপকূলে আঘাত হানে। রাত সাড়ে ১০টায় তীব্র বাতাস ১৫০-১৭০ মাইল বেগে আঘাত হানে। রাত ১টা পর্যন্ত ২৫-৩০ ফুট উঁচু জলোচ্ছ্বাসে সবকিছু লণ্ডভণ্ড হয়ে যায়। তখন চরাঞ্চলে রেডিও না থাকায় স্থানীয় মানুষ মহাপ্রলয়ঙ্করী এ ঘূর্ণিঝড়ের আগাম বার্তা জানতে পারেননি।

দিনটি স্মরণে আজ সোমবার আলোচনা সভা, সেমিনার, কোরআনখানি, মিলাদ মাহফিলসহ দোয়া ও মোনাজাতের আয়োজন করেছে উপকূলের বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃৃতিক সংগঠন।

আরও খবর

  • ঐক্যফ্রন্টের গণশুনানিতে যা বললেন কামাল-ফখরুল
  • রাজশাহী নগর আ.লীগ নেত্রী নিঘাত পারভীন দুর্ঘটনায় আহত
  • চার জেলায় বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৫
  • বাদ জুম্মা দেশের সব মসজিদে বিশেষ মোনাজাত
  • ভবনগুলোতে অগ্নি প্রতিরোধের কোন ব্যবস্থা ছিলো না
  • শান্তি বজায় রাখুন, ভারতকে পাকিস্তান
  • শেষ ঠিকানা আজিমপুর কবরস্থান
  • পাঁচবিবিতে মা-ছেলে ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার
  • ‘সিরাজগঞ্জ ইকোনমিক জোনের পথচলা উত্তরাঞ্চলের আশির্বাদ’
  • রোহিঙ্গাদের হামলায় ৩ জার্মান সাংবাদিক আহত
  • সব পুড়ে ছাই, অক্ষত মসজিদ
  • কপালগুণে বেঁচে গেলাম : পুলিশ সার্জেন্ট
  • প্রধানমন্ত্রী সারারাত ঘুমাননি
  • শহীদ কামারুজ্জামানের কবরে লাভলুর শ্রদ্ধা
  • পবায় সমিতির অফিসে দৃর্বৃত্তের আগুন


  • উপরে