তিন সপ্তাহেই স্লিম, সেই সঙ্গে চকচকে চেহারা!

তিন সপ্তাহেই স্লিম, সেই সঙ্গে চকচকে চেহারা!

প্রকাশিত: ০৮-০৯-২০১৯, সময়: ১২:৪৯ |
Share This

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : মেদ ঝরিয়ে চেহারাকে একটু ঝরঝরে করে তুলতে চান অনেকেই। আর এর জন্য প্রোটিন, ফ্যাট আর কার্বেহাইড্রেট বাদ দিয়ে ক্র্যাশ ডায়েটের দরকার নেই। কারণ তাতে ওজন কমলেও চেহারায় চকচকে ভাব আর থাকে না। এর সঙ্গে বাড়বে ক্লান্তি ও দুর্বলতা। কাজেই খাবার খান ক্যালোরি ও পুষ্টির কথা মাথায় রেখে। আর তাতেই তিন সপ্তাহের মধ্যে চেহারায় ধরা দেবে পার্থক্য।

ব্যায়ামের জন্য আলাদা সময় না পেলে লিফটের বদলে সিঁড়ি ওঠানামা করুন। কাছাকাছি গেলে হেঁটে যান। হাঁটার গতি বাড়ান। ঘরের কিছু কাজকর্ম করুন। সময়ে-সময়ে একটু স্ট্রেচিং করে নিন।

যদি বয়স বেশি হয় বা কোনও অসুখ-বিসুখ থাকে তাহলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন। তবে সুস্থ শরীর হলে একটু ডায়েট মেনে চললেই পেতে পারেন উপকার। এবার জানা যাক সেই ডায়েট সম্পর্কে-

প্রথম সপ্তাহ

সকালে দুধ-চিনি ছাড়া গ্রিন টি বা কালো চা। সঙ্গে একটা ফল৷ ব্রেকফাস্টে ছোট একবাটি খিচুরি বা ছোট দুটো রুটি। মিড মর্নিংয়ে একটা ফল ও চারটে আমন্ড বা আখরোট৷ দুপুরে সালাদ, দুটো আটার রুটি বা মাঝারি এক কাপ ব্রাউন রাইস, ডাল, সবজি, টক দই, মাছ অথবা মাংস। সন্ধ্যায় এক পিস ব্রাউন ব্রেডের স্যান্ডুইচ অথবা ছোট এক বাটি মুড়ি বা ছোলা। সঙ্গে গ্রিন টি অথবা কালো চা এক কাপ। রাতে ক্লিয়ার স্যুপ, সালাদ, একটা রুটি, সবজি মাছ চিকেন এই তিনটির মধ্যে একটি৷ শোয়ার আগে চিনি ছাড়া এক কাপ ডাবল টোনড দুধ।

দ্বিতীয় সপ্তাহ

সকালে গ্রিন টির সঙ্গে দুটা খেজুর৷ ব্রেকফাস্টে ছোট এক বাটি ওটস। মিডমর্নিংয়ে আগের মতোই একটা ফল ও চারটে আমন্ড বা আখরোট। দুপুরে একটা রুটি বা ছোট এক কাপ ভাত, ডাল, সবজি, টক দই, মাছ অথবা চিকেন। বিকেলে একটা ফল৷ ইচ্ছে হলে এক কাপ গ্রিন টি বা কালো চা। রাতে ভাত-রুটি বাদ। তার বদলে সালাদ, মাছ বা চিকেন। ডিম সেদ্ধ বা মাংসও চলতে পারে। ক্লিয়ার সুপও থাকবে।

তৃতীয় সপ্তাহ

সকালে গ্রিন টি, খেজুর। ব্রেকফাস্টে তরমুজ, শশা, পাকা পেঁপে ও আরও দু-একটি ফল, অল্প বাদাম। মিড মর্নিংয়ে ছোলা। অথবা মুগ, চানা, শশা, টমেটো দিয়ে বানানো সালাদ। দুপুরে ভাত-রুটি বাদ দিয়ে রাখুন সবজি, টক দই, মাছ বা চিকেন। বিকেলে ক্লিয়ার স্যুপ। রাতে সালাদ বা সবজি, সঙ্গে মাছ বা চিকেন এক পিস৷ শোয়ার আগে চিনি ছাড়া এক কাপ ডাবল টোনড দুধ।

অন্যান্য নিয়মাবলী

* ক্যালোরি ও গুণমান ঠিক রেখে খাবারে কিছু পরিবর্তন আনতে পারেন।

* এক দিন অনিয়ম হয়ে গেলে আধঘণ্টা বেশি হাঁটুন।

* অসময়ে খিদে পেলে প্রথমে পানি খান৷ না কমলে মাখন ছাড়া ক্লিয়ার স্যুপ, শশা, তরমুজ, পাকা পেঁপে বা গ্রিন সালাদ খান অল্প করে।

* খাওয়ার আগে পানি, ক্লিয়ার স্যুপ বা ডালের পানি খেলে কম খাবারেই পেট ভরবে।

* মূল খাবার খাওয়ার দু’ঘণ্টা আগে বা পরে দু’চামচ ইসবগুল পানিতে মিশিয়ে খান। পেট পরিষ্কার থাকবে এবং খিদেও কম পাবে৷ অতিরিক্ত চর্বি শোষণ করতেও এর ভূমিকা রয়েছে।

উপরে