লিটনের ইশতেহারে মেগা সিটি গড়ার মহাপরিকল্পনা

লিটনের ইশতেহারে মেগা সিটি গড়ার মহাপরিকল্পনা

প্রকাশিত: 09-07-2018, সময়: 15:29 |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক : মেয়র নির্বাচিত হলে রাজশাহীর মানুষের জন্য কী কী করতে চান তা জানাতে নির্বাচনি ইশতেহার প্রস্তুত করে ফেলেছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। কর্মসংস্থান সৃষ্টিকে গুরুত্ব দিয়ে নাগরিক সেবা নিশ্চিত আর স্বাস্থ্যসম্মত তিলোত্তমা নগরী গড়ার প্রতিশ্রুতি থাকবে সাবেক এই মেয়রের এবারের নির্বাচনি ইশতেহারে। মঙ্গলবার বেলা ১১টায় দলীয় কার্যালয়ে খায়রুজ্জামান লিটন তার নির্বাচনি ইশতেহার ঘোষণা করবেন।

এদিকে, বিএনপির প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের ইশতেহার প্রস্তত করা হয়েছে। কিন্তু কবে তা ঘোষণা করা হবে সে ব্যাপারে এখনো কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে গ্রীন সিটি, ক্লিন সিটি ও হেলদি সিটি গড়ে তোলা তার ইশতেহারে গুরুত্ব পাচ্ছে বলে জানা গেছে।

মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি খায়রুজ্জামান লিটন ২০০৮ সালের সিটি নির্বাচনে ২৩ দফা নির্বাচনি ইশতেহার প্রকাশ করেছিলেন। মেয়র নির্বাচিত হয়ে সেই ইশতেহারের প্রায় সব কাজই করেন তিনি। পরে ২০১৩ সালের সিটি নির্বাচনে লিটন ৩৭ দফা ইশতেহার প্রকাশ করেন। কিন্তু নানা কারণে এ নির্বাচনে তিনি পরাজিত হন। তারপরও লিটন রাজশাহীর উন্নয়নে ভূমিকা রাখেন।

মহানগর আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক ইসতিয়াক আহমেদ লেমন বলেন, কর্মসংস্থান সৃষ্টিকে গুরুত্ব দিয়ে নাগরিক সেবা নিশ্চিত আর স্বাস্থ্যসম্মত তিলোত্তমা নগরী গড়ার মহাপরিকল্পনা থাকছে এবারের নির্বাচনী ইশতেহারে। মঙ্গলবার বেলা ১১ টায় দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে ইশতেহার প্রকাশ করা হবে। প্রায় এক লাখ বেকারের কর্মসংস্থানসহ এবারের ইশতেহারে পাঁচ তারকা হোটেল, ক্রিকেট ভেন্যু, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, হার্ট ফাউন্ডেশন ও স্বাস্থ্যসম্মত তিলোত্তমা নগরী গড়ার পরিকল্পনা থাকবে।

অন্যদিকে ২০১৩ সালে মেয়র নির্বাচিত হওয়ার আগে ২০ দফা ইশতেহার ঘোষণা করেন মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। সে ইশতেহারের ৮০ ভাগ বাস্তবায়ন করেছেন বলে দাবি করে আসছেন বুলবুল। বিভিন্ন সময় গণমাধ্যমের কাছে সাক্ষাতকার দেয়ার সময় বুলবুল দাবি করেন প্রায় ৩০ মাস নগর ভবনের বাহিরে থাকলেও তার দেয়া প্রতিশ্রুতির ৮০ শতাংশ তিনি পুরন করেছেন।

নগর বিএনপি নেতা বিপ্লব মাহমুদ বলেন, মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের নির্বাচনি ইশতেহার প্রস্তুত হয়েছে। তবে কবে সেটি ঘোষণা করা হবে তা নিয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি। আগামী ১৪ জুলাইয়ের পর যে কোন দিন ইশতেহার ঘোষনা হতে পারে। রাজশাহী নগরকে গ্রীন সিটি, ক্লিন সিটি ও হেলদি সিটি গড়ে তোলার মহাপরিকল্পনা তার ইশতেহারে থাকছে বলে জানান তিনি।

উপরে