দন্ডিত খালেদা জিয়ার জামিন বহাল

দন্ডিত খালেদা জিয়ার জামিন বহাল

প্রকাশিত: ১৬-০৫-২০১৮, সময়: ০৯:৪৬ |
Share This

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত হয়ে কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ। হাইকোর্টের জামিন আদেশ স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষ ও দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা আপিল খারিজ করে বুধবার এ নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

একই সঙ্গে ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে হাইকোর্টে করা খালেদা জিয়ার আপিল শুনানি শেষ করার নির্দেশ দিয়েছেন আপিল বিভাগে। প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন চার সদস্যের আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এর আগে গত ৮ ও ৯ মে খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন আদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ ও দুদকের করা আপিল আবেদনের ওপর শুনানি হয়। শুনানি শেষে মামলাটির রায় ঘোষণার জন্য মঙ্গলবার দিন নির্ধারণ করেছিলেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

প্রসঙ্গত,গত ১২ মার্চ দুদকের আবেদনের শুনানি নিয়ে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়াকে চার মাসের অন্তর্র্বতীকালীন জামিন দেন বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ। পাশাপাশি এ মামলায় খালেদা জিয়ার সাজা কেন বৃদ্ধি করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন আদালত।

পরে ১৯ মার্চ খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন আদেশ আগামী ৮ মে পর্যন্ত স্থগিত করেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন চার বিচারপতির আপিল বেঞ্চ। একইসঙ্গে এই আদেশের বিরুদ্ধে দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষকে আপিলের অনুমতি দেন আদালত। আর আপিল আবেদনের সারসংক্ষেপ পরবর্তী দুই সপ্তাহের মধ্যে জমা দিতে দুদককে নির্দেশ দেন। এছাড়া ৮ মে ওই আপিল আবেদনের ওপর শুনানির তারিখ ধার্য করেন।

প্রসঙ্গত, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় গত ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন রাজধানীর বকশীবাজারে স্থাপিত অস্থায়ী পঞ্চম বিশেষ জজ আদালত। রায় ঘোষণার পরপরই তাকে ওই দিন বিকালে নাজিম উদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। তিনি এখন সেখানেই আছেন। ওই রায়ে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন আদালত। একইসঙ্গে এ মামলার অপর আসামি তার বড় ছেলে তারেক রহমানসহ বাকি পাঁচজনকে ১০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। পাশাপাশি তাদের ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা জরিমানাও করা হয়।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় অপর মামলাটি করে দুদক। এ মামলায় ২০০৯ সালের ৫ আগস্ট আদালতে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়।

আরও খবর

  • সংসদীয় কমিটির চেয়ারম্যানদের মন্ত্রীর মর্যাদা
  • উড়ন্ত ঢাকাকে মাটিতে নামাল মিরাজের রাজশাহী
  • রাজশাহীর চেহারায় পাল্টে যাবে : মেয়র লিটন
  • ৫ নেপালি শিক্ষার্থী রাবি ছাড়লো কেন?
  • সংরক্ষিত আসনে ২৫ জেলাকে অগ্রাধিকার দিয়ে তালিকা
  • তৃতীয় লিঙ্গের ৮ জন সংরক্ষিত আসনের প্রতিযোগিতায়
  • ১৪ দল ভাঙছে?
  • সংরক্ষিত আসনে আ.লীগের ফরম নিলেন ৯ তারকা
  • প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা পদে পুনঃনিয়োগ পেলেন জয়
  • যারা আ.লীগের মনোনয়ন পাবেন উপজেলায়
  • গোদাগাড়ীতে মনোনয়ন প্রত্যাশীর ছড়াছড়ি
  • রাজশাহীর পদ্মার চরে বিজিবির গুলি, অস্ত্র ফেলে পালালো ভারতীয়রা
  • সংরক্ষিত নারী আসনে আ.লীগের ফরম বিক্রি
  • শপথ নেই তো বেতনও নেই ঐক্যফ্রন্টের ৮ ‘এমপির’
  • প্রধানমন্ত্রীর ৫ উপদেষ্টা নিয়োগ


  • উপরে