৪১তম বিসিএসের সার্কুলার আসছে

৪১তম বিসিএসের সার্কুলার আসছে

প্রকাশিত: ২৮-০৫-২০১৯, সময়: ১১:৩৯ |
খবর > চাকরি
Share This

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : চারটি বিসিএসের কার্যক্রম নিয়ে এগোচ্ছে সরকারি কর্মকমিশন (পিএসসি)। এগুলো হচ্ছে- ৩৭, ৩৮,৩৯ ও ৪০তম বিসিএস। ৩৭তম বিসিএসের অপেক্ষমাণ তালিকা থেকে প্রথম শ্রেণীর নন-ক্যাডার পদে আরও কিছু নিয়োগের সুপারিশ করা হবে।

৩৮তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ ও মৌখিক পরীক্ষার দিন নির্ধারণ, ৩৯তম (বিশেষ) বিসিএস থেকে স্বাস্থ্য খাতে নন-ক্যাডার পদে নিয়োগের সুপারিশ এবং ৪০তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষার ফলপ্রকাশ করার কাজ চলছে। এছাড়া সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়াও চলছে। এর মধ্যেই ৪১তম বিসিএসের চাহিদাপত্র পেয়েছে স্বায়ত্তশাসিত সংস্থাটি। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ২ হাজার ১৩৫টি পদের চাহিদা পাঠিয়েছে। এখন আগস্টে ওই বিসিএসের সার্কুলার দেয়ার চিন্তাভাবনা চলছে।

পিএসসি চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিক যুগান্তরকে বলেন, ৪১তম বিসিএসের চাহিদাপত্র পাওয়া গেছে। চাকরি প্রার্থীদের জন্য সুখবর হচ্ছে এটি সাধারণ বিসিএস। বর্তমানে আমরা চারটি বিসিএস ও সরকারি হাইস্কুলে শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে ব্যস্ত আছি। তবু আগস্টের মধ্যে নতুন বিসিএসের সার্কুলার দেয়ার চিন্তাভাবনা আছে। ৩৭তম বিসিএসের বিজ্ঞাপনে ১ হাজার ২২৬ জনের কথা থাকলে ১ হাজার ৩১৪ জনকে ক্যাডার হিসেবে নিয়োগের সুপারিশ করা হয়। এছাড়া ৩ হাজার ৪৫৪ জনকে নন ক্যাডারে নিয়োগের লক্ষ্যে অপেক্ষমাণ রাখা হয়েছে। তাদের মধ্য থেকেই পদ পাওয়া সাপেক্ষে তাদের নিয়োগ দেবে পিএসসি। ইতিমধ্যে এ বিসিএস থেকে একদফা প্রথম শ্রেণীর নন-ক্যাডার পদে ৫৭৮ কর্মকর্তাকে নিয়োগের সুপারিশ করা হয়েছে। পিএসসির একজন কর্মকর্তা জানান, আরও বেশ কিছু প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীর শূন্যপদের তালিকা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে পাওয়া গেছে। ওইগুলো থেকে প্রথমে প্রথম শ্রেণীর পদে নিয়োগের সুপারিশ করা হবে। পরে দ্বিতীয় শ্রেণীর পদ নিয়ে শুরু হবে। এসব নিয়োগের ক্ষেত্রে উত্তীর্ণদের মধ্যে মেধাক্রম অনুসরণ করা হবে।

২০১৭ সালের ডিসেম্বরে ৩৮তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। গত বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি এর ফল প্রকাশ করা হয়। এতে ১৬ হাজার ২৮৬ জন উত্তীর্ণ হন। পরে ৮ আগস্ট এ বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা শুরু হয়। কিন্তু প্রায় ৮ মাস আগে শেষ হওয়া ওই পরীক্ষার ফল এখনও প্রকাশ করা যায়নি। অথচ ইতিমধ্যে ৩৯তম বিসিএসের পরীক্ষা নিয়ে ফলও প্রকাশ করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে পিএসসি চেয়ারম্যান যুগান্তরকে বলেন, ‘এ বিসিএসের খাতা আমরা দু’জন করে পরীক্ষককে দিয়ে দেখাচ্ছি। ক্ষেত্রবিশেষে প্রয়োজনে তিনজন পরীক্ষকও কোনো কোনো খাতা দেখছেন। এতে কিছুটা বিলম্ব হচ্ছে। তবে ঈদের পর ফল প্রকাশের সার্বিক প্রস্তুতি নেয়া হবে। তিনি বলেন- জেলখানা, ফ্যামিলি প্ল্যানিং, রেলওয়ে হাসপাতাল, পুলিশ হাসপাতালসহ বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে ডাক্তার নিয়োগ দেয়া হয়। যদি মন্ত্রণালয় ওইসব পদে নিয়োগের চাহিদা পাঠায় তাহলে আমরা ৪০তম বিসিএসে উত্তীর্ণদের মধ্য থেকে সুপারিশ দেয়ার জন্য প্রস্তুত আছি।

সরকারি হাইস্কুল : মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১ হাজার ৩৭৮ সহকারী শিক্ষক নিয়োগের পরীক্ষা জুলাইয়ের প্রথম সপ্তাহে নেয়ার প্রক্রিয়া শুরু করেছে পিএসসি। দ্বিতীয় শ্রেণীর পদমর্যাদার এ পরীক্ষা প্রথমবারের মতো আয়োজন করছে সংস্থাটি। সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে এ নিয়োগের দরখাস্ত নেয়া হয়। এতে ২ লাখ ৩৫ হাজার প্রার্থী আবেদন করেছেন। বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী গণিতে ২০৫, জীববিজ্ঞানে ১১৮, বাংলায় ৩৬৫, ইংরেজিতে ১০৬, ধর্মে ১৭২, সামাজিক বিজ্ঞানে ৮৩, ব্যবসায় শিক্ষায় ৮, ভূগোলে ৫৪, ভৌতবিজ্ঞানে ১০, শারীরিক শিক্ষায় ৯৩, চারুকলায় ৯২ এবং কৃষি শিক্ষায় ৭২ জন সহকারী শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে।

উপরে