রামেক হাসপাতালের রোগিদের কি খাওয়ানো হচ্ছে

রামেক হাসপাতালের রোগিদের কি খাওয়ানো হচ্ছে

প্রকাশিত: ২৯-০৮-২০১৯, সময়: ২১:৫৮ |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে সকালের নাশতায় রোগী-স্বজদের মাঝে মেয়াদ উর্ত্তিন্ন পচা পাউরুটি দেয়া হচ্ছে। তার সঙ্গে যে কলা ও জেলি দেওয়া হয় তাও নিম্নমানের। ফলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের নির্ধারিত ঠিকাদারের সরবরাহ করা পাউরুটি ফেলে দিতে হয়। দির্ঘদিন ধরে এই নিম্নমানের খাবার সরবরাহ করা হচ্ছে এ হাসপাতালে।

বৃস্পতিবার রোগীদের দেয়া মেয়াদ উর্ত্তিন্ন পচা পাউরুটি। এ নিয়ে রোগি ও তাদের স্বজনরা হাসপাতাল পরিচালকের কাছে অভিযোগ জানায়। সকাল সাড়ে নয়টায় হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ডে রোগিদের দেয়া হয়েছিল এমন পচা পাউরুটি। যার প্যাকেটে উৎপাদন বা মেয়াদ শেষের কোন তারিখ নেই। এ ঘটনায় রোগীর স্বজনরা অভিযোগ জানাতে প্রথমে পরিচালকের কাছে যান। কিন্তু তিনি না থাকায় পরে বিষয়টি হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌসকে জানানো হয়।

এ বিষয়ে জানতে হাসপাতালের কয়েকটি ওয়ার্ডে একাধিক রোগী ও তাদের স্বজনের সাথে কথা বলা হয়। তারা সবাই পচা পাউরুটি ও কলা দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। নাম না প্রকাশের শর্তে কয়েকজন রোগীর স্বজন অভিযোগ করে বলেন, সকালের নাশতা দেওয়ার সময় প্যাকেট খুলেই কয়েকজন এই পচা পাউরুটি ও কলা পান। কলাগুলো আকারে একদম ছোট ও পচা হওয়ায় সেগুলো ফেলে দেওয়া হয়। আর পাউরুটি কতদিন আগে তৈরী তার ঠিক নেই। প্যাকেটে উৎপাদন তারিখও দেয়া নেই। প্যাকেট খুললে বকেয়া গন্ধ বের হয়। কর্তৃপক্ষকে অভিযোগ দেওয়ার পরে সেগুলো ফেলে দেওয়া হয়। এর পর পরই ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে হাসপাতালের পরিচ্ছন্ন কর্মীরা কলা ও পাউরুটিগুলো দ্রুত সরিয়ে ফেলেন।

হাসপাতালে ভর্তিরত রোগীর স্বজন শাকিলা বেগম জানান, তার বোনের জন্য হাসপাতাল থেকে বরাদ্দকৃত সকালের নাশতা নিয়ে এসেছিলেন। পাউরুটি খুলে দেখেন দুর্গন্ধ বের হচ্ছে। পরে ছোট ভাইকে টাকা দিয়ে বাইরের দোকান থেকে পাউরুটি কিনে আনেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেক রোগীর স্বজন জানান, সকালের নাশতায় পাউরুটি, কলা, দুধ, ডিম, জেলি দিয়েছিল। পাউরুটি খাওয়ার অনুপযোগী হওয়ায় সেগুলো ফেলে দিয়েছেন। কেবল কলা, দুধ, ডিম রেখেছেন।

আরেক রোগীর স্বজন মেহেদী হাসান জানান, হাসপাতালে রোগীদের জন্য দেওয়া কলা, রুটি, জেলিতে অনেক সমস্যা আছে। মেয়াদ উর্ত্তিন্ন পচা রুটি দেয় আর যে জেলিগুলো দেওয়া হয় সেগুলো অনেক নিম্নমাণের। বিষয়গুলো হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে নজর দেওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেন তিনি।

রামেক হাসপাতালের উপ-পরিচালক সাইফুল ফেরদৌস বলেন, ‘বিষয়টি আমি শুনেছি তবে পাউরুটিগুলো পচা না। আসলে পাউরুটিগুলো গরম থাকা অবস্থায় প্যাকেট করা হয়েছে। কিছু প্যাকেট ফুটো না করায় গ্যাস বের হয়নি। তাই কিছুটা সমস্যা হয়েছে। এছাড়াও উৎপাদানের তারিখের বিষয়টি গুরুত্বসহকারে দেখা হবে।’

Leave a comment

উপরে