রাজশাহীর প্রত্যেক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডেঙ্গু কর্নার

রাজশাহীর প্রত্যেক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডেঙ্গু কর্নার

প্রকাশিত: ০২-০৮-২০১৯, সময়: ১২:১৪ |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহীতে ডেঙ্গু ঠেকাতে এ্যাকশন প্ল্যান তৈরী করেছে প্রশাসনের কর্মকর্তারা। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নগর ভবনে সকল দপ্তরের রাজশাহী বিভাগের কর্মকর্তা বৈঠক করে এ প্ল্যান তৈরী করে। এর অংশ হিসেবে ডেঙ্গু রোগিদের চিকিৎসা দিতে রাজশাহী বিভাগের প্রতিটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডেঙ্গু কর্নার খোলা হচ্ছে।

এর মধ্যে রয়েছে, ঢাকা থেকে এডিস মশা যেন আসতে না পরে এ জন্য রাজশাহীগামী ট্রেন, বাস ও বিমানে মশক নিধন ওষুধ স্প্রে করা, স্কুল-কলেজসহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরিস্কার পরিছন্নতা ও সর্বস্তরের জনসাধারণকে সচেতনতা বৃদ্ধিতে প্রচারণা, এডিস মশার বংশবিস্তার রোধে উৎসস্থল চিহ্নিত করে ধ্বংসকরণে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ, আগামী ৬ আগস্ট নগরীসহ জেলাজুড়ে বিশেষ পরিছন্নতা অভিযান পরিচালনা, নগরের ফগার মেশিনের মাধ্যমে মশক নিধন ওষুধ স্প্রে ও ঈদের মধ্যে ডেঙ্গু রোগিদের চিকিৎসর জন্য প্রতিটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ডেঙ্গু কর্নার স্থাপন ও রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওয়ার্ড বৃদ্ধি এবং একাধিক মেডিকেল টিম গঠন।

রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জমান লিটনের ডেঙ্গু প্রতিরোধে বিশেষ সভায় বক্তব্য রাখেন, রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার নুর উর রহমান, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জামিলুর রহমান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রাজশাহী বিভাগীয় পরিচালক ডা. গোপেন্দ্রনাথ আচার্য, রাজশাহী জেলা প্রশাসক হামিদুল হক, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের রাজশাহী বিভাগীয় উপ-পরিচালক শরমিন ফেরদৌস চৌধুরী, পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে অতিরিক্ত মহা-ব্যবস্থাপক অসীম কুমার তালকুদার, মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার সুজায়েত ইসলাম।

মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ডেঙ্গু প্রতিরোধে নাগরিকদের সচেতন করতে বাড়ি বাড়ি যাচ্ছেন রাসিকের স্বাস্থ্যকর্মীরা। এছাড়া জনসচেতনামূলক আলোচনা সভা, লিফলেট বিতরণ, মসজিদে জুম্মার নামাজ এবং ওয়াক্তিয়া নামাজের পূর্বের সচেতনতামূলক বক্তব্য প্রচার, স্কুল পর্যায়ে সচেতনতা কার্যক্রম, পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রচার, কেবল নেটওয়ার্কে প্রচার, ৩০টি ওয়ার্ডে স্বাস্থ্য সহকারীদের সমন্বয়ে কমিটি গঠন, দুইজন মেডিকেল অফিসারের সমন্বয়ে ৫ সদস্য বিশিষ্ট কেন্দ্রীয় কমিটি গঠনসহ বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। মশক নিয়ন্ত্রণে শিগগিরই ফগার মেশিন দিয়ে ওষুধ স্প্রে এর কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানান তিনি।

রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার নূর-উর রহমান বলেন, ডেঙ্গু প্রতিরোধে সমন্বয়ের মাধ্যমে যে এ্যাকশন প্ল্যান করা হলো তা কারো একার পক্ষে বাস্তবায়ন সম্ভাব নয়। মশক নিধন সবাইকে এক যোগে কাজ করতে হবে।

ডেঙ্গু নিয়ে কাউকে বাণিজ্য করতে দেয়া হবে না উল্লেখ করে বিভাগীয় কমিশনার আরও বলেন, যারা তাদের নিজের এলাকা পরিস্কার করবেন না সেসব সংশ্লিষ্ট জায়গাগুলোতে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হবে। ডেঙ্গু পরীক্ষায় অতিরিক্ত ফি আদায় কারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

যাদের জ¦র জ¦র ভাব তাদের ঈদে ঢাকা না ছাড়ার পরামর্শ দিয়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জামিলুর রহমান বলেন, ঢাকা থেকে রাজশাহীগামী ট্রেন, বাস এবং বিমানে মশক নিধন ওষুধ স্প্রে করতে হবে। যে ডেঙ্গু রোগবাহী মশা আসতে না পরে।

তিনি বলেন, ডেঙ্গু রোগীর চিকিৎসার জন্য ইতোমধ্যে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আলাদা ওয়ার্ড খোলা হয়েছে। একটি মেডিকেল বোর্ডসহ একাধিক চিকিৎসক টিম করা হয়েছে।

রাজশাহী জেলা প্রশাসক হামিদুল হক বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে পরিচ্ছন্নতায় ক্রাশ প্রোগ্রাম নেওয়ার বিষয়ে নিদের্শনা প্রদান করা হয়েছে। পুরো জেলায় আগামী ৬ আগস্ট একযোগে সকল প্রতিষ্ঠানে পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতায় বিশেষ অভিযান চালানো হবে। হাট-বাজারগুলোতেও এই কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। এছাড়া যারা পরিস্কার পরিছন্নতা করবে না তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. গোপেন্দ্রনাথ আচার্য বলেন, রাজশাহী বিভাগের ৮ জেলায় বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ৩৯৭ জন ডেঙ্গু রোগী পাওয়া গেছে। তবে এ বিভাগে এখন পর্যন্ত কেউ মারা যাননি। যারা চিকিৎসা নিয়েছেন, তারা সবাই সুস্থ্য আছেন।

রাজশাহীতে ডেঙ্গবাহী মশা আছে বলে জানিয়েছে তিনি আরও বলেন, এখন পর্যন্ত সেসব ডেঙ্গু রোগি ভর্তি হয়েছেন তারা সবাই ঢাকায় গিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন। তবে একজন রাজশাহীতে আক্রান্ত হওয়া রোগি পাওয়া গেছে। রাজশাহীতে ঈদের মধ্যে ডেঙ্গু রোগির সংখ্যা বাড়ার আশঙ্কা করয়েছে। এ জন্য প্রতিটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে ডেঙ্গ কর্নার খোলা হচ্ছে।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক শরমিন ফেরদৌস চৌধুরী বলেন, ডেঙ্গু বিষয়ে সচেতন করতে স্কুলগুলোতে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। স্কুলের আঙ্গিনাগুলো এবং যেসব স্থানে পানি জমে থাকে সেগুলো স্থান পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন করতে সব প্রতিষ্ঠানকে চিঠি দেয়া হয়েছে।

উপরে