নলডাঙ্গায় ত্রিমুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা

নলডাঙ্গায় ত্রিমুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা

প্রকাশিত: ০১-০৬-২০১৯, সময়: ১৬:৩৬ |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক, নাটোর : নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলা নির্বাচনে বিদ্রোহী সহ আওয়ামীলীগের দুজন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বিএনপির প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এরা হলেন আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আসাদুজ্জামান আসাদ, আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার আহমদ আলী শাহ ঘোড়া প্রতীক এবং উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন আনারস প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

বিএনপির শাজাহান আলী প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেওয়ায় এই তিনজন এখন লড়াইয়ে রয়েছেন। সাধারন ভোটাররা মনে করছেন শান্তিপুর্ন পরিবেশে নির্বাচন হলে ত্রিমুখী লড়াই হবে।

এদিকে আয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার আহমদ আলী শাহ প্রার্থীতা প্রত্যাহার না করায় নেতাকর্মীদের অনেকেরে মধ্যে বিভ্রান্তি ছড়িয়ে পড়েছে। অনেকেই হতাশা প্রকাশ করেছেন। তারা মনে করেন ইঞ্জিনিয়ার আহমদ আলী শাহ মনোনয়ন প্রত্যাহার না করায় আওয়ামীলীগ প্রার্থীর জেতার ব্যাপারে অনেকটা চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে। ইতিপূর্বে কোন্দল বা বিরোধ মেটাতে আয়োজিত জরুরি সভায় উপজেলা আওামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম ফিরোজ সহ শীর্ষ নেতাদের কয়েকজন উপস্থিত না হওয়ায় উপজেলায় দলের নেতা -কর্মীদের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে। জরুরী সভায় এনিয়ে সিনিয়র নেতাদের কেউ কেউ ক্ষোভ প্রকাশ করেন। অনেকেই সভাস্থল ত্যাগ করেন ।

অপরদিকে বিএনপি’র স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন বলেন, তাকে মনোনয়ন প্রত্যাহারের জন্য চাপ প্রয়োগ করা হয়। কিন্তু তিনি মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করতে রাজি হননি। সাখাওয়াত হোসেন বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে তিনি জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী। এলাকাটি নাটোরের জনপ্রিয় নেতা রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর নিজ এলাকা। রাতের অন্ধকারে ব্যালট বাক্স না ভরালে এই উপজেলায় তিনিই নির্বাচিত হবেন।

তবে আওয়াামী লীগ প্রার্থী আসাদুজ্জামান আসাদ কাউকে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে চাপ দেওয়ার অভিযোগকে ভিত্তিহীন ও মিথ্যাচার বলে দাবী করে বলেন, সাখাওয়াত হোসেনকে চাপ প্রয়োাগ করার কোন প্রশ্নই ওঠে না। আমি ব্যক্তিগতভাবে এমন ধরনের কর্মকান্ডে বিশ্বাসী নই। আর প্রতিদ্বন্দ্বি না থাকলে লড়াই জমবে না বরং সাখাওয়াতের সঙ্গে নির্বাচনী লডাই করে বরং ভালই লাগবে। তার কর্মকান্ড মূল্যায়ন করবে জনগণ। এছাড়া জেএমবির গড ফাদার রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুর জনপ্রিয়তা যাচাইয়ের সুযোগ হবে।

অপরদিকে আওয়াামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার আহমদ আলী শাহ বলেন, জনগণের ইচ্ছায় নির্বাচনে অবতীর্ণ হয়েছি । আমি প্রত্যাহার করতে চাইলেও জনগণ আমাকে নির্বাচনী মাঠ থেকে সরে যেতে দেবেন না। সুষ্ঠ নির্বাচন হলে তিনিও জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। উল্লেখ্য ১৮ জুন এই উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

উপরে