রাবিতে দিনভর আন্দোলনে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা

রাবিতে দিনভর আন্দোলনে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা

প্রকাশিত: ১০-১০-২০১৯, সময়: ১৬:৩৬ |
Share This

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, রাবি : আবরার হত্যার প্রতিবাদ এবং বর্তমান প্রশাসনের দুর্নীতি ও অনিয়ম অভিযোগ তদন্তের দাবিতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) দিনভর একাধিক কর্মসূচি পালিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ছাত্রলীগসহ শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও বিভিন্ন সংগঠন গণস্বাক্ষর কর্মসূচি, লাল কার্ড প্রদর্শন, মৌন মিছিল, মানববন্ধন, সামবেশ ও শোক র‌্যালি করেছে।

এদিন সকাল ১০টা থেকে কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে শিক্ষার্থীরা গণস্বাক্ষর কর্মসূচির আয়োজন করে। এদিকে আবরারের স্মরণে শোক র‌্যালি করেছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। পরে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশ থেকে আবরার হত্যার সুষ্ঠু বিচার দাবি করা হয়। পরে বেলা ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সৈয়দ নজরুল ইসলাম প্রশাসন ভবনের সামনে শিক্ষাঙ্গনে দুর্নীতি ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের অভিযোগ করে লাল কার্ড প্রদর্শন কর্মসূচি পালন করে শিক্ষার্থীরা।

এদিকে বেলা ১১টার দিকে বিশ^বিদ্যালয়ের তাজউদ্দিন আহমদ সিনেট ভবনের সামনে আবরার হত্যার প্রতিবাদ ও বর্তমান প্রশাসনের দুর্নীতি, অনিয়ম তদন্তের দাবিতে সমাবেশ করে দুর্নীতি বিরোধী শিক্ষক সমাজ।

সমাবশে ছাত্ররাজনীতি বন্ধের দাবি প্রসঙ্গে শিক্ষকরা বলেন, ছাত্র রাজনীতি চলতে পারে। কিন্তু এ ধরনের অপকর্ম না ঘটুক। এদেশের ইতিহাসে ছাত্রসমাজের উজ্জ্বল ভূমিকা আমরা জানি। আবরার হত্যাকান্ডে ছাত্র রাজনীতির দোষ নেই। তা ঘটেছে অপরাজনীতির কারণে। আমরা ছাত্র রাজনীতি চাই, এ ধরণের লেজুড়বৃত্তি ও অপরাজনীতি চাই না। এর আগে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে একই স্থানে বর্তমান বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে দুর্নীতিবাজ অ্যাখ্যা দিয়ে অপসারণ দাবি করে মানববন্ধন করেছে বিএনপিপন্থী জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরাম।

মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি আমজাদ হোসেন বলেন, দুর্নীতি সরকারের সব সেক্টরে। একটা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির ছেলে জামাইয়ের সাথে টাকা ভাগাভাগি করে এটা ভাবা যায়। আবার সে ভিসি তার নিজ পদে এখনও বর্তমান। সরকার তার ব্যাপারে এখনও কোন পদক্ষেপ নেয় নি। আবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি তার শিক্ষার্থীর কাছে চাকরী দেয়ার নামে বলে ‘মা, কত টাকা দিতে পারবা’। এর চেয়ে লজ্জাজনক কাজ পৃথীবিতে আছে কিনা আমার জানা নেই।

জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরামের সহ-সভাপতি মামুনুর রশীদের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি সাইফুল সাইফুল ইসলাম ফারুকী বলেন, আজকে মানুষের মত প্রকাশের অধিকার নেই। আর যদি থাকত আবরার কে এভাবে নৃশংসভাবে হত্যা করা হত না।

সরকারের ক্ষমতাকে কাজে লাগিয়ে সরকারের সন্ত্রাসী সংগঠন ছাত্রলীগ কী না করছে। প্রত্যেক ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগ সাধারণ শিক্ষার্থীর কাছে ভয়ের ত্রাস। ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের সিট বাণিজ্য, টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজি, লুটপাট লেগেই আছে। আর এটার মদদ দিচ্ছে সরকার দলীয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

Leave a comment

উপরে