রাবির সমাবর্তনে অংশগ্রহণের সুযোগ চান স্নাতকধারীরা

রাবির সমাবর্তনে অংশগ্রহণের সুযোগ চান স্নাতকধারীরা

প্রকাশিত: ০৫-০৯-২০১৯, সময়: ১৩:৫৬ |
Share This

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, রাবি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ১১তম সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৩০ নভেম্বর। সমাবর্তনের এই আসরে ২০১৫ ও ২০১৬ সালে কৃতকার্য হওয়া পিএইচডি, এমফিল, স্নাতকোত্তর, এমবিবিএস, বিডিএস, ডিভিএম ডিগ্রী অর্জন করা স্নাতকরা অংশগ্রহণ করতে পারবে। তবে নিয়মিত শিক্ষার্থী হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া সত্ত্বেও সুযোগ পাচ্ছে না একই শিক্ষাবর্ষ থেকে যারা শুধুমাত্র স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেছেন। এতে স্নাতকরা অসন্তোষ প্রকাশ করে এই নিয়ম পরিবর্তনের জন্য প্রশাসনকে অনুরোধ জানিয়েছেন।

স্নাতকরা জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পর প্রথম ডিগ্রি স্নাতক। এই ডিগ্রি অর্জনের পর অনেকেই চাকরিতে যোগদান করে, অনেকে উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে চলে যায়। বিজ্ঞান অনুূষদ ও প্রযুক্তি অনুষদে এই প্রবণতা আরো বেশি। এই অনুষদগুলোর অনেক শিক্ষার্থীই স্নাতক ডিগ্রী অর্জনের পরই ক্যাম্পাস ত্যাগ করেন। কিন্তু স্নাতকোত্তর না করলে সমাবর্তনে অংশ নেয়ার নিয়মটির জন্য প্রতিবার অসংখ্য স্নাতক সমাবর্তনে অংশ নিতে না পেরে বঞ্চিত হচ্ছে। রাবির এই সাবেক শিক্ষার্থীরা বিষয়টির যৌক্তিক সমাধান চেয়েছেন।

বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফলিত রসায়ন ও কেমি কৌশল বিভাগের স্নাতক আব্দুল মোন্নাফ বলেন, সমাবর্তন বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল ছাত্র-ছাত্রীর অধিকার। পৃথিবীর সব বিশ্ববিদ্যালয় স্নাতকধারীদের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে অংশ নেয়ার দেয়, শুধু মাত্র রাবিতে দেয়া হয়না। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সমাবর্তনে আমাদের অংশগ্রহণের সুযোগ রাখছে না।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী শাওন সরকার বলেন, বিশশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মিত শিক্ষার্থী হিসেবে ভর্তি হয়েও শুধুমাত্র মাস্টার্স না করায় কেউ সমাবর্তনে অংশ নিতে পারবে না, এই নিয়ম সত্যিই অমানবিক। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের উচিৎ এই নিয়ম সংস্কার করা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য চৌধুরী মোহাম্মদ জাকারিয়া বলেন, এই সমাবর্তনে কেবল অনার্স করেছে তাদের অংশ গ্রহণের সুযোগ নেই। বিশ^বিদ্যালয় থেকে ২০১৫ ও ১৬ সালে অনার্স ও মাস্টার্স করেছে তারাই সুযোগ পাবে। এই নিয়মটি ১১তম সমাবর্তনে পরিবর্তন হবে বলে মনে হয় না।

Leave a comment

উপরে