প্রাথমিক শিক্ষকদের জন্য মন্ত্রণালয়ের নতুন পরিপত্র

প্রাথমিক শিক্ষকদের জন্য মন্ত্রণালয়ের নতুন পরিপত্র

প্রকাশিত: ০৪-০৮-২০১৯, সময়: ২২:০২ |
Share This

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : প্রাথমিক শিক্ষকদের জন্য গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নতুন পরিপত্র জারি করেছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। রোববার ডেঙ্গু জ্বর নিয়ে নতুন এই পরিপত্র জারি করা হয়।

এতে বলা হয়েছে, রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে ৬৩টি জেলায় ডেঙ্গসংক্রমন ঘটেছে। এডিস মশার মাধ্যমে ডেঙ্গুর ভাইরাস ছড়ায়। এডিস মশাই এই রোগের একমাত্র বাহক। আবদ্ধ স্বচ্ছ জলাশয়ে এ মশা বংশবিস্তার করে। এই মশা সাধারণত দিনের বেলায়, বিশেষ করে ভোরে কিংবা শেষ বিকেলে কামড়ায়। ডেঙ্গু মশা বিস্তারের মৌসুম প্রধানত মে থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এই পাঁচ ম্বাস। ডেঙ্গু জ্বর প্রতিরোধের চেয়ে এডিস মশার বংশ বিস্তার রোধ করা এ রোগ প্রতিরোধের সর্বোত্তম পন্থা।

ডেঙ্গু প্রতিরোধে সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসমূহ কর্মসূচী গ্রহণ করেছে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এ কাজে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে। গত ২৮ জুলাই হতে ঢাকার উভয় সিটি কর্পোরেশন এলাকায় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন শিক্ষক, সকল পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন। এ প্রচেষ্টা সকল জেলায় সম্প্রসারিত করা প্রয়োজন।

এতে আরো বলা হয়, জনসচেতনতা সৃষ্টির মাধ্যমে এডিস মশার বংশ বিস্তার রোধ করার অংশ হিসাবে সকল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, ছাত্র অভিভাবক, উপজেলা ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাবৃন্দ, উপজেলা রিসোর্স সেন্টারের প্রশিক্ষক, প্রাথমিক শিক্ষক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের কর্মকর্তাগণ এবং বিভাগীয় প্রাথমিক উপপরিচালকগণ তাদের বাসগৃহ, আঙ্গি এবং বিদ্যালয় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করলে এবং অন্যদের উক্ত কাজে উৎসাহিত করলে ডেঙ্গুর প্রকোপ রোধ করা সম্ভব!

এ উদ্দেশ্যে সকল শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দকে মা সমাবেশ, অভিভাবক সমাবেশ, ছাত্র শিক্ষক মতবিনিয়ম, পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা, সচেতনতামূলক র‌্যালীর আয়োজন এবং স্বাস্থ্য ও স্থানীয় সরকারি প্রতিষ্ঠানের পরিচালিত মশার ওষধ ছিটানোর কাজে সম্পৃক্ত হয়ে এ কাজ এগিয়ে নিলে কাংখিত উদ্দেশ্য সফল হবে। এজন্য জেলা ও বিভাগীয় প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা-কর্মচারী, পিটিআই এর প্রশিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারী ও ইউনারসি ইস্ট্রাকটর ও কর্মকর্তা-কর্মচারী, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সকল প্রধান শিক্ষক/সহকারী শিক্ষকগণ তাদের ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকদের সাথে নিয়ে সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা এবং কেউ ইতোমধ্যে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হলে তাকে চিকিৎসা সেবা নিতে সহায়তা করতেও অনুরোধ করা হলো।

Leave a comment

উপরে