ছাত্র পিটিয়ে অবরুদ্ধ রাবি শিক্ষক

ছাত্র পিটিয়ে অবরুদ্ধ রাবি শিক্ষক

প্রকাশিত: ১২-০৭-২০১৯, সময়: ২২:৫৪ |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাবি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে মারধরের অভিযোগে এক শিক্ষককে তালাবন্ধ করে রাখে শিক্ষার্থীরা। শুক্রবার বিকেলের বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসমাইল হোসেন সিরাজী ভবনের সামনে মারধরের এ ঘটনা ঘটে বলে জানান ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী।

এর পরে বিকেল সাড়ে পাঁচটা থেকে সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর একাডেমিক ভবনে ওই শিক্ষকের নিজ কক্ষে তালাবদ্ধ করে রাখে শিক্ষার্থীরা। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের অনুরোধে শিক্ষার্থীরা সেখান থেকে চলে যায়।

অভিযুক্ত শিক্ষকের নাম এটিএম এনামুল জহির। তিনি আইন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক।

মারধরের শিকার সিরামিকস এন্ড স্কাল্পচার বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী সুপ্ত বলেন, আমি আমার এক বান্ধবীকে নিয়ে হাঁটছিলাম। তখন এই শিক্ষক বান্ধবীকে ডেকে নিয়ে বিভিন্ন কটু মন্তব্য করেন। আমি জিজ্ঞেস করি যে, কেন তিনি এসব বললেন। তখন আমার হাত ধরে মোচড়াতে থাকেন। এক পর্যায়ে আমাকে কিল-ঘুষি মারা শুরু করেন। পরে সিরাজী ভবনের প্রহরীরা এসে আমাকে উদ্ধার করে।

সিরাজী ভবনের এক প্রহরী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, আমি দেখেছি যে এক ছেলেকে জহির স্যার হাত ধরে মোচড়াচ্ছেন। ছেলেটাও স্যারকে মারতে চাচ্ছে। এমতাবস্থায় আমরা কয়েকজন গিয়ে শিক্ষক-শিক্ষার্থীকে সরিয়ে দেই। শুনলাম স্যার নাকি ওই ছাত্রের সঙ্গে থাকা মেয়েকে কিছু বলেছেন। এটা নিয়েই ঝামেলা হয়।

শিক্ষককে অবরোদ্ধ করে রাখা কয়েকজন শিক্ষার্থী বলেন, এই জহির স্যারের নামে আগেও অনেক অভিযোগ আছে। এবার তাকে আর ছাড় পেতে দিবো না। শিক্ষার্থীকে মারধরের শাস্তি তাকে পেতেই হবে। প্রয়োজনে অনশনে যাবো আমরা। তবে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে কোনো অভিযোগ দেওয়া হবে কিনা সে বিষয়ে কিছু বলেননি ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী সুপ্ত।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মো. লুৎফর রহমান বলেন, ওই শিক্ষক মারধরের অভিযোগটি অস্বীকার করেছেন। একটু সময় নিয়ে যোগাযোগ করতে হবে। তবে ভুক্তভোগী যদি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে অভিযোগ দেয়; সেক্ষেত্রে তদন্ত কমিটি গঠন হতে পারে।

উপরে