যেভাবে করা যাবে একাদশে ভর্তির আবেদন

যেভাবে করা যাবে একাদশে ভর্তির আবেদন

প্রকাশিত: ১২-০৫-২০১৯, সময়: ১৩:১৪ |
Share This

পদ্মাটাইমস ডেস্ক : সাধারণ শিক্ষায় একাদশ শ্রেণি ও মাদ্রাসায় আলিমে ভর্তি কার্যক্রম শনিবার মধ্যরাতে শুরু হয়েছে। অনলাইন ও মুঠোফোনের খুদেবার্তার মাধ্যমে কলেজ ও মাদ্রাসায় ভর্তি কার্যক্রম চলছে। আবেদনকারীকে প্রথমে মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটক, গ্রামীণ ও মোবাইল ব্যাংকিং শিওরক্যাশ ও বিকাশের মাধ্যমে আবেদন ফি জমা দিতে হচ্ছে। টাকা জমা দেয়ার পর ‘কনফার্মেশন’ এসএমএসের ভিত্তিতে অনলাইনে আবেদন করতে হবে।

শনিবার বিকালে ওয়েবসাইটটি (http://www.xiclassadmission.gov.bd/) উন্মুক্ত করা হয়। তবে আজ দুপুরে আবেদন কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। সাধারণ ও মাদ্রাসা শিক্ষার পাশাপাশি আজ পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটসহ বিভিন্ন কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেও আবেদন নেয়া হবে।

অনলাইনে আবেদন

www.xiclassadmission.gov.bd ওয়েবসাইটে গিয়ে অনলাইনে আবেদন করতে হবে। এর আগে শিক্ষার্থীকে তার এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার রোল নম্বর, বোর্ড, পাসের সাল ব্যবহার করে এসএমএস করে টেলিটক/রকেট/শিওরক্যাশের মাধ্যমে ১৫০ টাকা ফি জমা দিতে হবে।

এ ক্ষেত্রে টেলিটক সিম থেকে মোবাইলের খুদেবার্তার অপশনে গিয়ে CAD স্পেস WEB স্পেস পরীক্ষা পাসের Board-এর নামের প্রথম তিন অক্ষর স্পেস পরীক্ষার রোল স্পেস পরীক্ষা পাসের সন লিখে ১৬২২২ নম্বরে সেন্ড করতে হবে।

ফিরতি এসএমএস এ আবেদনকারীর নাম ও আবেদন ফি বাবদ ১৫০ কেটে নেয়া হবে তা জানিয়ে একটি পিন কোড দেয়া হবে।

ফি দিতে সম্মত থাকলে ম্যাসেজ অপশনে গিয়ে CAD স্পেস YES স্পেস PIN স্পেস CONTACT NUMBER (বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে পুনঃনিবন্ধিত মোবাইল নম্বর) লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে।

ফি সঠিকভাবে জমা হলে প্রার্থীর মোবাইলে নিশ্চিতকরণের একটি Transaction IDmn SMS যাবে।

টেলিটক/রকেট/শিওরক্যাশ মাধ্যমে নির্ধারিত আবেদন ফি ১৫০ টাকা জমা দেয়ার পর আবেদনকারীকে নির্ধারিত ওয়েবসাইটে www.xiclassadmission.gov.bd Apply Online -এ ক্লিক করতে হবে। এর পর প্রদর্শিত তথ্য ছকে এসএসসি বা সমমান পরীক্ষা পাসের রোল নম্বর, বোর্ড ও পাসের সন এবং রেজিস্ট্রেশন নম্বর দিয়ে সঠিকভাবে এন্ট্রি করতে হবে।

এর পর প্রয়োজনীয় প্রক্রিয়া শেষ হলে আবেদনকারী একটি ফরম পাবে, সেটি ডাউনলোড করে নিতে হবে। একইভাবে সর্বনিম্ন ৫টি এবং সর্বোচ্চ ১০টি প্রতিষ্ঠানে আবেদন সম্পন্ন করতে হবে প্রার্থীকে।

অনলাইনে আবেদনের ক্ষেত্রে ফি একই। সর্বনিম্ন ৫টি কলেজে আবেদন করলেও ১৫০ টাকা আবার ১০টি কলেজে আবেদন করলেও ১৫০ টাকা চার্জ করবে।

এসএমএসে আবেদন

এসএমএমের মাধ্যমেও আবেদন করা যাবে কলেজগুলোতে। এ ক্ষেত্রে শুধু টেলিটক প্রি-পেইড সংযোগ থেকে সর্বোচ্চ ১০টি কলেজে আবেদন করা যাবে। মোবাইলের ক্ষুদেবার্তার অপশনে গিয়ে এভাবে টাইপ করতে হবে- CAD ভর্তিচ্ছু কলেজ/মাদরাসার EIIN ভর্তিচ্ছু গ্রুপের নামের প্রথম দুই অক্ষর এসএসসি/সমমান পরীক্ষা পাসের বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর, এসএসসি/সমমান পরীক্ষা পাসের রোল নম্বর, এসএসসি/সমমান পরীক্ষা পাসের সাল, এসএসসি/সমমান পরীক্ষা পাসের রেজিস্ট্রেশন নম্বর, ভর্তিচ্ছু শিফটের নাম ভার্সন/কোটার নাম (যদি থাকে)। এরপর মেসেজটি send করতে হবে ১৬২২২ নম্বরে।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ও আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক যুগান্তরকে বলেন, এবারও শিক্ষার্থীরা অনলাইনে সর্বোচ্চ ১০টি এবং সর্বনিম্ন পাঁচটি কলেজ বা মাদ্রাসায় আবেদন করতে পারবে। এসএমএসে অবশ্য একবারে একটি প্রতিষ্ঠানের জন্য আবেদন করা যাবে। আবেদনে শিক্ষার্থীদের সুরক্ষা দিতে এবার বাবা অথবা মায়ের যে কোনো একজনের জাতীয় পরিচয়পত্রের (এনআইডি) নম্বর বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। যাতে কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষার্থীদের জিম্মি করতে না পারে, সে জন্য এবার প্রথমবারের মতো ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের অধীন কলেজের তিনটি ক্যাটাগরি করা হয়েছে। এর মধ্যে ‘এ’ ক্যাটাগরিতে ৮২ এবং ‘বি’ ক্যাটাগরিতে ৪৫টি কলেজ আছে। এ বোর্ডের ১০২০টি কলেজের মধ্যে বাকিগুলো ‘সি’ ক্যাটাগরির।

অনলাইনে সর্বনিম্ন পাঁচটি এবং সর্বোচ্চ ১০টি আবেদন করা যাবে। এ জন্য নেয়া হবে ১৫০ টাকা। মোবাইল ফোনে প্রতি এসএমএসে একটি করে কলেজে আবেদন করা যাবে। দিতে হবে ১২০ টাকা। কোনো শিক্ষার্থী ১০টির বেশি প্রতিষ্ঠানে আবেদন করতে পারবে না। কলেজ পছন্দের ঝক্কি দূর করতে এবার প্রথম ধাপের আবেদনের ফল প্রকাশ না করা পর্যন্ত আবেদন তালিকায় কলেজের পছন্দক্রম রদবদল করা যাবে।

তিনটি ধাপে আবেদন নেয়া হবে। প্রথম ধাপে ২৩ মে পর্যন্ত আবেদন করা যাবে। এ পর্যায়ে ১০ জুন ফল প্রকাশ করা হবে। দ্বিতীয় পর্যায়ে ১৯ ও ২০ জুন আবেদন করা যাবে। ২১ জুন ফল প্রকাশ করা হবে। তৃতীয় ধাপে ২৪ জুন আবেদন করা যাবে। ২৫ জুন ফল প্রকাশ করা হবে। ২৭ থেকে ৩০ জুন শিক্ষার্থীদের নির্বাচিত কলেজে ভর্তি হতে হবে। ১ জুলাই শুরু হবে ক্লাস।

কারিগরি প্রতিষ্ঠানে ভর্তি : দেশের সব পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, ইনস্টিটিউট অব গ্লাস অ্যান্ড সিরামিকস, গ্রাফিক্স আর্টস ইনস্টিটিউট, ফেনী কম্পিউটার ইনস্টিটিউট, বিভিন্ন সার্ভে ইনস্টিটিউট, ভোকেশনাল টিচার্স ট্রেনিং ইনস্টিটিউট এবং সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজে চার বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং এবং ডিপ্লোমা ইন ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি কোর্সে শিক্ষার্থী ভর্তির কার্যক্রম আজ শুরু হচ্ছে। একটানা ৮ জুন পর্যন্ত আবেদন করা যাবে। ফলপ্রকাশ করা হবে ১৫ জুন। পর দিন থেকে ২৫ জুন পর্যন্ত মূল মেধাতালিকায় স্থানপ্রাপ্তরা ভর্তি হতে পারবে। ২৯ জুন থেকে ২৫ জুলাই পর্যন্ত অপেক্ষমাণ তালিকার প্রার্থী ভর্তি করা হবে। ভর্তি সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য যুগান্তরের ১০ মে সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছে।




উপরে