সুজানগরে দাম না পাওয়ায় পাট আবাদে আগ্রহ হারাচ্ছে কৃষকরা

সুজানগরে দাম না পাওয়ায় পাট আবাদে আগ্রহ হারাচ্ছে কৃষকরা

প্রকাশিত: ০৫-০৮-২০১৯, সময়: ২০:১০ |
Share This

এম এ আলিম রিপন, সুজানগর : সুজানগরে শ্রমিক সংকট, ন্যায্য দাম না পাওয়াসহ নানা কারণে প্রতি বছরই কমছে পাটের আবাদ। দেশের অন্যান্য উপজেলার মত সুজানগর উপজেলারও অনেক কৃষক পাটের আবাদ করতো। বিরুপ আবহাওয়া, শ্রমিক সংকট নানাবিধ কারণে বর্তমানে পাট আবাদে হতাশ হয়ে পড়ছে কৃষকরা। ফলে পাটের পরিবর্তে সুজানগরের কৃষকরা এখন ধান, সহ অন্যান্য ফসল আবাদের দিকে বেশি ঝুকে পড়ছে। এক সময় বাংলাদেশের প্রধান অর্থকরী ফসল ছিল এ পাট। তাই পাটকে বলা হতো সোনলী আঁশ। ধানের পর পরেই ছিল পাটের স্থান। অল্প করে হলেও প্রত্যেক কৃষকই পাট আবাদ করতেন।

কিন্তু গত কয়েক বছর ধরে বিরূপ আবহাওয়া, ভালো বীজের অভাব, পাট পঁচানোর পানির অভাব, ন্যায্যমূল্য না থাকাসহ নানা অসুবিধার মুখে পড়ে কৃষকরা পাট আবাদে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন। তাছাড়া শ্রমিক সঙ্কটের কারণেও পাট চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন কৃষকরা। পাট আবাদে আগ্রহ হারিয়ে ফেলার অন্যতম কারণ গুলোর মধ্যে হলো ন্যায্যমূল্যের অভাব। পাটখেত নিড়ানি, কর্তন ও পাটের আঁশ ছড়াতে অনেক শ্রমিকের পারিশ্রমিকের প্রয়োজন হয়। যার ফলে পাট বিক্রয় করার সময় ন্যায্য মূল্যের চেয়ে কম মূল্যে বিক্রয় করতে হয়।

সুজানগর উপজেলার কৃষকরা মনে করছেন এভাবে প্রতি বছর পাটের আবাদ কমতে থাকলে একসময় সুজানগর থেকে হারিয়ে যাবে সোনালি আঁশখ্যাত অর্থকরী এ ফসল। সুজানগর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র থেকে জানা যায়, চলতি বছর (২০১৯-২০ অর্থবছর) সুজানগর উপজেলায় পাট আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৯ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে অর্জিত হয়েছে ৮ হাজার ৫০০ হেক্টর। গত বছর (২০১৮-১৯) লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৯ হাজার ৬০০ হেক্টর। আর অর্জিত হয়েছিল ৮ হাজার ৬০০ হেক্টর। গত বছরের তুলনায় এ বছর প্রায় ১০০০ হেক্টর জমিতে কম পাট আবাদ হয়েছে। প্রতি বছরই সুজানগর উপজেলায় এভাবে কমছে পাটের আবাদ।

সুজানগর উপজেলার খয়রান গ্রামের আব্দুল খালেক নামক এক কৃষক জানান, পাটখেত নিড়ানি, কর্তন ও পাটের আঁশ ছড়াতে অনেক শ্রমিকের অর্থ যোগান দিতে হয়। কিন্তু আমরা পাট বিক্রয় করার সময় ন্যায্য মুল্য পাই না। সুজানগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ ময়নুল হক সরকার জানান শ্রমিক সংকট এবং অন্যান্য ফসল আবাদে কৃষকের আগ্রহ বেশি থাকায় পাটের আবাদ কিছুটা কমেছে। এ বিষয়ে সুজানগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শহীনুজ্জামান শাহীন জানান এই উপজেলায় কৃষকেরা আগামীতে পাট চাষের উপর যাতে আগ্রহ হারিয়ে না ফেলে সে জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।

Leave a comment

উপরে