টয়োটা লেক্সাসে চড়ে এসে মাটি কাটলেন মজুর

টয়োটা লেক্সাসে চড়ে এসে মাটি কাটলেন মজুর

প্রকাশিত: ১৫-০৪-২০১৯, সময়: ১৭:৫২ |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিরাজগঞ্জ : এলাকার আশপাশের ৫/৬ কিলোমিটার মধ্যে কেউ কাজে অন্তঃর্ভুক্ত করালে পায়ে হেটে সম্পদ টুকরি-কোদাল নিয়েই কাজে যোগ দেয় মাটি কাটা দিন মজুর তথা কামলা। কিন্তু সোমবার ভোরে সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুর থানার গোপিনাথপুরে নব নির্মিত কবরস্থান ও ঈদগা মাঠে মাটি ফেলতে ব্যতিক্রমী ঘটনা ঘটেছে। এক দিন মজুর মুল্যবান টয়োটা লেক্সাসে চড়ে কাজে যোগ দিয়েছেন। টানা ২ ঘন্টা কাজ করে আবার নিজ গাড়ীতেই ফিরেছেন ঢাকায়। এমন বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে সকলকে ভাল কাজে উৎসাহ দিয়ে গেছেন মানবতাবাদী শিল্পপতি জেলার হাজারো ধর্মীয় ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ার প্রধান উদ্যোক্তা বিকেএমইএ-এর সাবেক পরিচালক ও টেক্সজেন গ্রুপের এমডি আলহাজ্ব শেখ আব্দুস সালাম। এলাকার ৬ শতাধীক মানুষের স্বেচ্ছাশ্রমে পরিচালিত ঐ কাজে তাকে এভাবে পেয়ে বিষ্মিত হয় সকলে।

শেখ আব্দুস ছালাম জানান, পহেলা বৈশাখে বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহনের জন্য ক দিন আগে ঢাকা থেকে নিজ বাড়ি খামারগ্রামে এসেছি। গ্রামের সকলের প্রচেষ্ঠায় প্রায় কোটি টাকা ব্যয়ে গড়া নতুন নির্মিত কবরস্থান ও ঈদগা মাঠ সংস্কারের জন্য আর খুব একটা স্বামর্থ নেই তাদের। তাই স্বেচ্ছাশ্রমে সেখানে সোমবার বাদ ফজর মাটি ফেলবে বলে গত রবিবার মাইকে প্রচারনার কথা শুনে আমি ভোরেই সেখানে লুঙ্গী-গামছা নিয়ে হাজির হই। সেখানে সবার সাথে প্রায় ২ ঘন্টার মত কাজ করি। তারা আমাকে কাছে পেয়ে উৎফুল্লতা প্রকাশ করে।

তিনি আরো জানান, কারো কাজকেই ছোট করে দেখা ঠিক নয়। আর সর্বজনীন ভাল উদ্যোগ হলে সকলের সেখানে অংশ গ্রহন করা উচিৎ।

তিনি আরো জানান, আমার ভোরে জরুরী কাজে ঢাকায় যাবার কথা থাকলেও গোপিনাথপুরের ঐকাজে বিবেক নাড়া দেয়ায় সেখানে সকল শ্রেনীর মানুষের সাথে অংশ নিয়ে আত্বতৃপ্ত হয়েছি। সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টা কখনো থমকে থাকেনা। এর সফলতা আসবেই। ঐ গ্রামের নদী ভাঙ্গন কবলিত আশ্রিত মানুষ তা আবারো প্রমান করেছে।

এদিকে সোমবার ভোরে ঐ কাজে গ্রামের প্রতি বাড়ি-বাড়ি থেকেই শিশু, বৃদ্ধ থেকে শুরু করে বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ এতে অংশ নেয়। এভাবে স্বেচ্ছাশ্রমে প্রতিদিন কাজ অব্যাহত থাকবে বলে জানালেন কবরস্থান ও ঈদগা মাঠ রক্ষনা-বেক্ষন কমিটির সভাপতি গাজী মোজাম্মেল হক, ফজলুল হক ডনু, হাজী মজিবর রহমান ও হাজী দয়াল হোসেন জানান, স্বাধীনতা পরবর্তী আমাদের গ্রামে কবরস্থান ও কোন ঈদগা জানাজা মাঠ ছিলনা। সবার সহযোগীতায় আমরা প্রায় ১ কোটি টাকা ব্যয়ে ২ বছরে অর্ধেকটা কাজ বাস্তবায়ন করেছি। এখনো অনেক টাকা লাগবে। বর্তমানে স্বামর্থ না থাকায় স্বেচ্ছাশ্রমে গ্রামবাসী কাজ শুরু করেছে। এভাবে প্রায় প্রতিদিনই আমরা কাজ করবো। এজন্য তারা প্রধানমন্ত্রীর কাছে এজন্য সহযোগীতা দাবী করেন।

এদিকে কাজে যোগ দেয়া এনায়েতপুর গ্রামের ব্যবসায়ী আখতারুজ্জামান তালুকদার, চিত্র শিল্পী মোশারফ হোসেন খান, প্রবাসী শুকুর আলী জানান, এই কাজটি আসলেই সবার জন্য দৃষ্টান্ত। আমরা দুনিয়াতে মসজিদে নামাজের সময় শুধু ধনী-গরীব এক হই। আজকে এই কাজে দ্বিতীয় বারের মত ভাতৃত্বের বন্ধনে আমাদের আবদ্ধ করেছে। আসলে হৃদয়ের টানে মহৎ কাজে শরীক হয়ে আমরাও আনন্দিত।

গ্রামের ভ্যান শ্রমিক বাজু শেখ, মীর কাশেম, তাঁত শ্রমিক দুলাল, আলী আলম ছাত্র সাব্বির ও সবুজ হোসেন জানান, আমাদের গ্রামের সম্মিলিত উদ্যোগে অনেক ভাল কাজ হয়ে থাকে। সেখানে যে যার অবস্থান হতে অংশ নিয়ে থাকি। এতে আমাদের সবার মাঝে যেমন দ্বন্ধ বিতারিত হয়। তেমনী সফল হয় একটি বড় উদ্যোগ।

Leave a comment

আরও খবর

  • কমিউনিটি পুলিশিং নেতৃবৃন্দের সঙ্গে আরএমপি কমিশনারের মতবিনিময়
  • বিদ্যুৎ সংযোগে ঘুষ বাণিজ্য
  • যুবলীগ নেতা শাহীন হত্যা, ৭ জনের যাবজ্জীবন
  • ‘আজকে শরবত খাবো না’
  • ‘সুপেয়’ পানির শরবত নিয়ে ওয়াসার এমডির জন্য অপেক্ষা
  • শ্রীলংকায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩২১
  • পোশাক খাতের মজুরি বাড়েনি, উল্টো ২৬ শতাংশ কমেছে : টিআইবি
  • রাণীনগরে ব্রীজের অভাবে বাঁশের সাঁকোই ভরসা
  • জয়পুরহাটে শিশু কন্যাকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ
  • মাথা নুইয়ে নিহতদের শ্রদ্ধা জানাল লংকানরা
  • ভিডিওতে ধরা পড়ল শ্রীলঙ্কার গির্জায় হামলাকারী যুবক
  • বন্দুকযুদ্ধে নিহত আ.লীগ নেতা হত্যার আসামি
  • জায়ানের লাশ আসছে বুধবার
  • হামলা নিয়ে ৩ বছর আগেই সতর্ক করেন মুসলমানরা
  • রাজধানীর সড়কে ঝরল ২ প্রাণ



  • উপরে