সোনামসজিদে ১৪৩ কোটি টাকা রাজস্ব ঘাটতি

সোনামসজিদে ১৪৩ কোটি টাকা রাজস্ব ঘাটতি

প্রকাশিত: ২৮-০১-২০১৯, সময়: ১৬:২২ |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক, শিবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জের সোনামসজিদ স্থলবন্দরে ব্যবসা বাণিজ্যের গতিশীলতা ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল। গত ২০১৮-১৯ অর্থবছরে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১৪৩ কোটি টাকা রাজস্ব আয় কম হয়েছে।

কাস্টমস দপ্তর সূত্রে জানাগেছে- গত ছয় মাসে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২৩৫ কোটি ২৩ লাখ ৫৩ হাজার টাকা। কিন্তু আদায় হয়েছে ৯১ কোটি ৮২ লাখ ২৫ হাজার টাকা। গত ছয় মাসে স্থলবন্দর দিয়ে যে সমস্ত পণ্যে রাজস্ব আয় বেশি হয়। সেই পণ্যগুলো না আসার কারণেই রাজস্ব আয়ের ঘাটতি দেখা গিয়েছে। আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যের সাথে সংশ্লিষ্ট আমদানিকারক, সিএন্ডএফ এজেন্ট নেতৃবৃন্দ জানায়, দেশের অন্য বন্দরগুলোতে আমদানিকৃত পণ্য ছাড়ের ক্ষেত্রে সরকারি নিয়ম মেনে চললেও আড়ালে কিছু সুযোগ সুবিধা পাচ্ছে। যে কারণেই আমদানিকারকেরা সোনামসজিদ স্থলবন্দর ছেড়ে অন্য বন্দর দিয়ে পন্য আমদানি করছে বলে আমদানি-রপ্তানিকারক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক রফিকুর রহমান বাবু ও সিএন্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি হারুন অর রশিদ জানায়। তারা আরও জানায়, স্থলবন্দরের পানামা ইয়ার্ডের ভেতরে পণ্য ছাড়ের ক্ষেত্রে ত্রুটি ও কাস্টমসের জনবল সংকটের ফলে যথাসময়ে পণ্য ছাড়ে বিলম্ব হয়ে থাকে।

সিএন্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি হারুন অর রশিদ জানান, কাস্টমস কর্তৃপক্ষ চলতি অর্থবছরের প্রথম ছয় মাসে রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২৩৫ কোটি টাকা। কিন্তু আদায় হয়েছে ৯১ কোটি ৮২ লাখ টাকা। ঘাটতি ১৪৩ কোটি টাকা। চলতি মাস থেকে সোনামসজিদ বন্দরে ব্যবসা বাণিজ্য গতিশীলতা ফিরিয়ে আনার জন্য নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। ইতিপূর্বে কোন কোন সংস্থা কর্তৃক আমদানিকৃত পণ্যের গাড়ি থেকে যে টাকা পয়সা আদায় করা হতো তা বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান, আমদানিকৃত পণ্যের গাড়ি থেকে অবৈধভাবে কোন টাকা পয়সা আদায় করা হলে তা কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উপরে