পোরশায় আমের ব্যবসা জমজমাট

পোরশায় আমের ব্যবসা জমজমাট

প্রকাশিত: ১১-০৬-২০১৯, সময়: ১২:২৫ |
Share This

নিজস্ব প্রতিবেদক, পোরশা : নওগাঁর পোরশার সর্বত্রই এখন আম আর আম। বাগানেতো আছেই তারপরেও হাটে বাজার সহ সব জায়গাতে শুধু আম। এরই মধ্যে বাজারে এসেছে গোপালভোগ, মোহনভোগ, ল্যাংড়া, খিরসাপাত, বিভিন্ন জাতের গুটি আম সহ নান জাতের বাহারী সুস্বাধু আম। এই জনপদে চলছে আমের বিরামহীন বেচাকেনা। আম ব্যবসার সাথে জড়িত ব্যবসায়ী ও গাছ থেকে আম ভাঙ্গা কাজে নিয়োজিত শ্রমিকদের গাছ থেকে আম নামানো ও বাজারজাত করনের জন্য যেন ফুরসত নেই। আম প্যাকেট জাত করনে ব্যাস্ত তারা। আর এই আমের কারনে আম ক্ষ্যাত চাঁপাইনবাবগঞ্জের মত চাঙ্গা হচ্ছে এ উপজেলার অর্থনীতি।

পোরশা উপজেলার পোরশা বাজার, সরাইগাছি মোড়, নোচনাহার বাজার, নিতপুর, গাঙ্গুরিয়া, শিশা সহ বিভিন্ন বাজারে শতাধীক আড়তে প্রতিদিন প্রায় ৪৫লাখ টাকার আম বিক্রি হচ্ছে। আমের ব্যবসার জন্য কয়েক হাজার লোকের মৌসুমি কর্মসংস্থানও হয়েছে। এ ব্যবসা চলবে জুলাই পর্যন্ত। আম ব্যবসার সাথে জড়িতদের মতে মৌসুমি কর্মসংস্থানের ফলে পোরশার অর্থনীতি কিছুটা হলেও চাঙ্গা হয়েছে। সে সঙ্গে বেড়েছে ব্যাংক লেনদেন। উপজেলার আম বাজার গুলি ক্রেতা-বিক্রেতায় মুখরিত থাকছে প্রতিনিয়ত। এ কারনে জমে উঠেছে আমের ব্যবসা। ফলন ভাল থাকায় এবারে পোরশায় প্রায় ৩০০কৌটি টাকার আম বানিজ্য হবে বলে ব্যবসায়ীরা মনে করছেন।

নোচনাহার আরাফাত ফল ভান্ডারের মালিক আনিসুর রহমান (মেম্বার) জানান, প্রতিদিন গাছ থেকে আম নামিয়ে প্যাকেট জাত করে সেদিনই পাঠিয়ে দেয়া হচ্ছে দেশের বিভিন্ন শহরে। তিনি জানান, প্রতিদিন গাছ থেকে আম নামানো ও প্যাকেটজাত করার জন্য তার অধিনে ৩৫জন লোক কাজ করছে। এখানকার আম মিষ্টি হওয়ায় দেশের বিভিন্ন এলাকার আম ব্যবসায়ীরা পছন্দ করছেন এবং প্রচুর চাহিদা রয়েছে। তিনি আরও জানান, এবারে আমের ফলন ভাল হওয়ায় এবং বাজারে চাহিদা থাকায় ব্যবসায়ীরা লাভের আসা করছেন।

উপজেলা আম ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আব্দুস সামাদ শাহ জানান, এবারে আমে পোকার মাকড়ের তেমন কোন আক্রমন না থাকায় এবং ভাল ফলন হওয়ায় আমাদের উপজেলা থেকে প্রতিদিন গড়ে ৪৫ট্রাক আম ঢাকা, টাঙ্গাইল, সিলেট, ফেনী সহ দেশের বিভিন্ন স্থানের ব্যবসায়ীরা ক্রয় করে নিয়ে যাচ্ছেন। ভবিষ্যতে আরও বেশী আমের ব্যবসা হবে বলে তিনি আসা করছেন।

তিনি আরও জানান, এ উপজেলায় যে হারে আম বাগান হচ্ছে এর ভাল ফলন ও উৎপাদনের লক্ষে এখানে আম গবেষনাগার হলে মালিক ও ব্যবসায়ীদের জন্য ভাল হবে। তবে পোরশার আম চাপাইনবাবগঞ্জের আমকে ছাড়িয়ে গেছে বলে তিনি মনে করছেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাহফুজ আলম জানান, চলতি মৌসুমে পোরশায় ৯হাজার ২০০ হেক্টর জমিতে আম চাষ হয়েছে। এখানকার আম অধিকতর মিষ্টি ও নিরাপদ হওয়ায় দেশে এবং বিদেশে এখানকার আমের চাহিদা রয়েছে। ভবিষ্যতে এখানে প্রচুর আম চাষ হবে বলে তিনি আশা করছেন এবং চাপাইনবাবগঞ্জের চেয়ে নওগাঁ জেলায় বেশী আম উৎপাদন হচ্ছে বলে তিনি মনে করছেন। এছাড়ও ইতোমধ্যে পোরশার আম দেশের সর্বত্র ব্যাপক পরিচিতি সাড়া ফেলেছে বলে তিনি জানান।

উপরে