ঝালকাঠিতে আমনের বাম্পার ফলন, চরম শ্রমিক সংকট

ঝালকাঠিতে আমনের বাম্পার ফলন, চরম শ্রমিক সংকট

প্রকাশিত: ০৯-০১-২০১৯, সময়: ১৭:০৪ |
Share This

রহিম রেজা, ঝালকাঠি : ঝালকাঠিতে এবছর আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। ফসল কাটা ও মারাই করতে কৃষকরা একন ব্যস্তসময় পার করছেন। তবে এলাকার বেকার যুবকরা আটো, অটো রিক্সা ও মোটরসাইকেল চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করায় ধান কাটা শ্রমিক সংকট দেয়া দিয়েছে চরম ভাবে। আবাহাওয়া অনুকুলে থাকায় ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে বলছে কৃষক। তাইতো তাদের মুখে হাসি ফুটেছে। আমন ধান চাষ করে এবার লাভবান হবে কৃষকরা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সুত্রে জানাগেছে,‘ ঝালকাঠি জেলা এবছর ৪৯ হাজার ৯৪১ হেক্টর জমিতে আমন ধানের চাষ করা হয়েছে। বীজ রোপন থেকে শুরু করে ধান কর্তন পর্যন্ত কোন রকম বৈরি আবাহাওয়া না থাকায় ফলন ভাল হয়েছে। বিগত বছরে অসময়ের বৃষ্টিসহ অন্যান্য প্রকৃতিক বিপর্যয় থাকায় আমনের ব্যপক ক্ষতি হয়। এতে কয়েক হাজার হেক্টর জমির আধাপাকা ধান পঁেচ গিয়ে ফলনের বিপর্জয় হয়। কৃষক বড় ধরনের ক্ষতির মুখে পরেছিল। এবছর চিত্র ভিন্ন।

জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্ত জানিয়েছে, এবছর আমন ধানের উৎপাদন লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৯৬ হাজার ১৬৯ মে.টন। এখন পর্যন্ত ৬০ থেকে ৭০ ভাগ ফসল কাটা হয়েছে। এবছর উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল প্রায় এক লক্ষ মে.টন চাল। ফলনও হয়েছে বিগত ১০ বছরের মধ্যে রেকর্ড পরিমান। এই অভুতপূর্ব ফলন দেখে কৃষকরা আশায় বুক বেধেছে। তবে কৃষকদের দাবি ভাল ফলনের পাশাপাশি তাদের উৎপাদিত ফসলের যেন ন্যায্য মূলে নিশ্চিত করে সরকার। তাহলে কৃষককূল আগ্রহ নিয়ে চাষাবাদ করবে, অর্থনৈতিক ভাবে মুক্ত হবে তারা। আমন ধানের মন ( ৪০) কেজি ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

নলছিটি উপজেলার প্রতাপ গ্রামের কৃষক আনোয়ার হোসেন বলেন,‘ এবছর আমন ধানের ফলন ভাল হয়েছে। তবে ধানের ন্যায্য মূল্য যেন আমরা পাই সে ব্যাপারে সরকারের দৃষ্টি আর্কশন করছি।

একই এলাকার কৃষক আব্দুল বারেক খান বলেন,‘ বর্তমানে শ্রমিকের পারিশ্রমিক অনেক বেশি। ফলস রোপন থেকে শুরু কর্তন পর্যন্ত অনেক টাকা খরচ হয়। ধানের দাম বেশি হলে আমরা বাঁচতে পারি আর কম হলে আমাদের বাঁচার কোন পথ থাকে না। বর্তমানে ধান কাটা শ্রমিক সংকট চরম আকার ধারন করেছে।

ঝালকাঠি কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. ফজলুল হক বলেন,‘ কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে এখানকার কৃষকদের বিভিন্ন রকমের পরামর্শ আমরা দিয়েছে। পাশাপাশি আবাহাওয়া ভাল থাকায় এবছর ফলন ভাল হয়েছে।

আরও খবর

  • কামারগাঁ গুদামে ধান ক্রয় বন্ধ
  • বরেন্দ্রে পুরোদমে আমন রোপন শুরু
  • সুজানগরে কমেছে দেশী পেঁয়াজের দাম
  • উৎপাদন বাড়লেও কমেছে রপ্তানি
  • কৃষিতে আধুনিকরণ করার লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার : কৃষিমন্ত্রী
  • পুঠিয়ায় কৃষি আবহাওয়া তথ্য পদ্ধতি উন্নতকরণ বিষয়ক কৃষক প্রশিক্ষন
  • গোদাগাড়ীতে পলিথিন বিছিয়ে বেগুন চাষ
  • বদলগাছীতে যন্ত্রের সাহায্যে রোপণ মাড়াই
  • লোকসান ছাড়ছে না মরিচ চাষিদের
  • সঠিক পরিচর্যার অভাবে বাড়ছে না প্রায় দেড় সহস্রাধিক খেজুরগাছ
  • ‘কৃষকরা ৪% সুদে ঋণ পাবে’
  • বগুড়ায় প্রতিকেজি কাঁচা মরিচ মাত্র ১২ টাকা
  • পবায় যান্ত্রিকভাবে ধানের চারা তৈরীর উদ্বোধন
  • রাণীনগরে আউশ আবাদ করছেন না কৃষকরা!
  • বানেশ্বরে জমে উঠেছে আমের হাট



  • উপরে